আব্দুর রহমান রাসেল,রংপুর:-রংপুরের পীরগাছা উপজেলার ছাওলা ও তাম্বুলপুর জনপ্রতিনিধিদের আশায় থাকতে থাকতে যোগাযোগের বেহাল আবস্থা সৃষ্টি হওয়ায় জীবনের ঝুকি নিয়ে  বাঁশের সাঁকো দিয়ে জনতার প্রচেষ্টায় স্বেচ্ছা শ্রমে ৪ গ্রামের মানুষ মিলিত হয়ে বুরাল নদীর উপর নির্মান করলো একটি বাঁশের সাঁকো। বুরাল নদীর উপর বাঁশের সাঁকো  দিয়ে তাম্বুলপুরের রামগোপাল শেষ মাথার পরেই   টেপচারবন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,আদম বাজার,ছাওলা,পাওটানাহাট যাওয়ার একমাত্র এ রাস্তাটি প্রায় ২যুগেরও বেশি মানুষ পথ চলাচল করেন।

এ স্থানে খেয়া দিয়ে জীবনের ঝুকি নিয়ে স্কুল কলেজ মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী শিশু বৃদ্ধ মহিলারা প্রতিনিয়ত পাড়াপাড় হয়। স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা চেয়ারম্যানসহ জাতীয় সংসদ সদস্য পর্যন্তওই স্থানে একটি পাকা সেতু নির্মানের প্রতিশ্রুতি দিলেও  একযুগেও তা কার্যকরী না হওয়ায় স্থানীয় জনতা একত্রিত হয়ে বাড়ী বাড়ী গিয়ে বাঁশ তুলে বাঁশের সাঁকোটি নির্মান করে। ওই বাঁশের সাঁকো দিয়ে  তাম্বুলপুরের মানুষ  রামগোপালের শেষ মাথা  পাড় হলেই প্রথমে টেপচারবন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,আদম বাজার,ছাওলা,পাওটানাহাট, এলাকার প্রায় ২০ হাজার মানুষের যাতায়তের ভোগান্তি বেড়েই চলচ্ছে। সাবেক মেম্বার ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ছাওলা ইউনিয়ন শাখার সাধারন সম্পাদক মো: আব্দুল হাকিম মিয়া বলেন টেপচারবন্দরে এক সময় বন্দর নামে হাট বাজার  ছিলো । আর সেই হাটে বিভিন্ন জেলা থেকে ক্রেতারা আসতো  পাট,গম, সরিষা,মরিছ, ক্রয় করার জন্য। ক্রেতারা বুরাইল নদীর উপর খেয়া দিয়ে জীবনের ঝুকি নিয়ে পাট,গম, সরিষা,মরিছ ক্রয় করে জামালপুর,ময়মনশিং,ঢাকা,নারায়নগঞ্জ উদ্দেশ্য নিয়ে যেতো। র্বতমানেও  জীবনের ঝুকি নিয়ে বুরাল নদীর উপর বাঁশের সাঁকো দিয়ে স্কুল ছাত্র-ছাত্রীরা চলাচল করে।

টেপচারবন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হয়রত আলী জানান,২যুগেরও বেশি  জীবনের ঝুকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে পথ চলাচল করে স্কুল কলেজ মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী  শিশু বৃদ্ধ মহিলারা ।

এলাকার মানুষ, উপজেলা চেয়ারম্যানের মুখাপেক্ষি না হয়ে নিজেদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ও আর্থিক সহযোগিতায় আমরা কয়েক দিনে কিছু  মানুষ মিলে  বাঁশের সাঁকোটি নির্মান করতে পেরেছি। এর ফলে এলাকার মানুষের কিছুটা হলেও দূর্ভোগ লাঘব হয়েছে। র্বতমান ছাওলা ইউপি চেয়ারম্যান শাহ্ মোঃ হাকিম জানান, এখানে একটি পাকা সেতু নির্মানের জন্য সব ধরনের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। স্থানীয় সংসদ সদস্য বেশ আন্তরিক। তিনি এ স্থানে ব্রীজ নির্মানের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ে একটি ডিও লেটার দিয়েছেন। আশা করছি দ্রুত ব্রীজ নির্মান করা হবে। এলাকাবাসী উক্তস্থানে একটি পাকা সেতু নির্মানের দাবী জানিয়েছেন।

Share Button