বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করছেন, ব্যাংক-বিমা গিলে ফেলে মসজিদ-মন্দিরের টাকাও আত্মসাতে মেতে উঠেছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা। তিনি বলেন, বিএনপির কর্মসূচি একের পর এক চলছে। যথার্থ আন্দোলন কর্মসূচি কবে আসবে, তা সময়মতো জানানো হবে।
আজ রোববার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নের জবাবে রিজভী এই কথা বলেন।
রিজভী অভিযোগ করেন, ক্ষমতাসীনেরা জুন ক্লোজিংয়ের নামে সারা দেশে লুটপাট করছে। দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলার এসব লুটপাটের খবর পত্রপত্রিকায় ফলাও করে প্রকাশিত হয়েছে। এমনকি মসজিদ-মন্দিরের নামে ভুয়া কমিটি করে অথবা নামসর্বস্ব ধর্মীয় ও সামাজিক ক্লাব-সংগঠন দেখিয়ে সরকারি বরাদ্দ নিজেদের পকেটে ঢোকাচ্ছে। সারা দেশের জেলা-উপজেলায় চলতি জুনে ভুয়া প্রকল্পের মাধ্যমে শত শত কোটি টাকা লুটপাটের মহোৎসবের খবর গণমাধ্যমগুলোর এখন প্রধান শিরোনাম।
রিজভী বলেন, ব্যাংক, বিমা, সব আর্থিক প্রতিষ্ঠান গিলে ফেলে এখন তারা মসজিদ-মন্দিরের টাকাও আত্মসাতে মেতে উঠেছে। লুটপাটের মাধ্যমে বিদেশে টাকা পাচার করে পুরো দেশটাকে ধ্বংস করেও ক্ষমতাসীনদের ক্ষুধা মিটছে না। এখন তাদের থাবা মসজিদ, মন্দিরসহ ধর্মীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানগুলোর দিকেও।
রিজভী অভিযোগ করেন, সংবাদ সম্মেলন করতে চাওয়ায় আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদ রহমানের বাসায় পুলিশ ও সাদাপোশাকধারী গোয়েন্দা পুলিশ গভীর রাত থেকে ঘিরে রাখে। এটি মুক্ত চিন্তা ও বাক্স্বাধীনতার ওপর চরম কুঠারাঘাত।

Share Button