সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :- সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে বাঁধ দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত ৬১ জনকে আসামী করে সুনামগঞ্জ সদর থানায় মামলা (মামলা নম্বর ২, সুনামগঞ্জ সদর থানা) দায়ের করেছে দুদক। দুদকের সহকারী পরিচালক ফারুক আহমদ বাদী হয়ে রবিবার বিকালে এই মামলা দায়ের করেন।
মামলায় প্রত্যাহারকৃত অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (উত্তর-পূর্বাঞ্চল) মো. আব্দুল হাই, প্রত্যাহারকৃত তখনকার সিলেটের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. নুরুল ইসলাম সরকার এবং বরখাস্তকৃত সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আফসার উদ্দীনসহ ১৫ জন সরকারি কর্মকর্তা এবং ঠিকাদার সঙ্গে যুক্ত আফজালুর রহমান, খন্দকার শাহীনসহ ৬১ জনকে আসামী করা হয়েছে।
হাওর-বাাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু বলেন,‘বাঁধ না হওয়ায় সুনামগঞ্জের প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকার ফসল পানিতে ডুবেছে। বাঁধ দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে দুদক’র মামলা দায়েরের বিষয়টি দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলনের সাফল্য হিসাবে দেখছি আমরা।’
এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ্ খান বলেন,‘দুদক’র মামলাটি গ্রহণ করা হয়েছে। মামলায় ৬১ জনকে আসামী করা হয়েছে।’
উল্লেখ্য যে, বিগত (২৮ মার্চ) অতি বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের কারণে দুর্বল নিমার্ণ করায় হাওর রক্ষা বাঁধ ভেঙে প্রায় দুই লক্ষ হেক্টর জমির ধান তলিয়ে যায়। বাঁধ ভাঙার কারণে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীকে সেই সময় প্রত্যাহার করা হয়। অভিযোগ ওঠে ঠিকাদারা কাজ না করেই টাকা উত্তোলন করে নিয়ে গেছেন। এ সব অভিযোগ আমলে নিয়ে তদন্তে নামে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি। এরই প্রেক্ষিত আজ দুদকের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Share Button