গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার অন্যতম ‘পরিকল্পনাকারী’ আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ শুক্রবার ভোরে নাটোরের সিংড়া থানা এলাকা থেকে রাশেদকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ক্রাইমের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম মোবাইল ফোনের খুদে বার্তায় এই তথ্য জানান।

খুদে বার্তায় বলা হয়, আজ ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে সিংড়া বাজার বাসস্ট্যান্ড এলাকার পূর্ব দিক থেকে রাশেদকে গ্রেপ্তার করা হয়। রাশেদকে গ্রেপ্তারের অভিযানে অংশ নেয় সিটিটিসি, পুলিশ সদর দপ্তরের আড়িপাতা শাখা এবং বগুড়া ও নাটোর জেলা পুলিশ।

সিটিটিসির ভাষ্য, র‍্যাশ নামেও পরিচিত গ্রেপ্তার হওয়া রাশেদ।

সিটিটিসির প্রধান মনিরুল ইসলাম জানান, গ্রেপ্তারের পর রাশেদকে সিংড়া থেকে ঢাকায় আনা হচ্ছে।

বগুড়া জেলা পুলিশের অতিরিক্ত সুপার (গণমাধ্যম) সনাতন চক্রবর্তী জানান, গুলশান হামলার মূল সমন্বয়ক তামিম চৌধুরীর ঘনিষ্ঠ সহযোগী ছিলেন রাশেদ (২৪)। তিনি এই হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী। তাঁর বাড়ি নওগাঁর মান্দা উপজেলায়। বাবার নাম আবদুস সালাম।

গত বছরের ১ জুলাই রাতে হোলি আর্টিজান বেকারিতে সশস্ত্র হামলা চালায় পাঁচ জঙ্গি। জঙ্গিরা নয়জন ইতালিয়ান, সাতজন জাপানি, একজন ভারতীয় নাগরিক এবং বাংলাদেশের ফারাজ আইয়াজ হোসেন, অবিন্তা কবীর, ইশরাত আখন্দ এবং দুজন পুলিশ কর্মকর্তাসহ মোট ২২ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে। পরদিন সকালে সেখানে যৌথ বাহিনী অভিযান চালায়। অভিযানে নিহত হয় পাঁচ জঙ্গি।

হোলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার মূল পরিকল্পনাকারীসহ বিভিন্ন পর্যায়ে নব্য জেএমবির ২১ জন জড়িত থাকার তথ্য-উপাত্ত পেয়েছেন তদন্তকারীরা। তাদের মধ্যে ১৫ জন গত এক বছরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়। চারজন কারাগারে আছেন। হাদিসুর রহমান সাগর নামের একজনকে ধরার বাকি রয়েছে।

Share Button