দৌলতপুর প্রতিনিধি॥
দৌলতপুরের কলিয়া সপ্তাহের প্রতি মঙ্গলবার হাট বসে এখানে। তবে ঈদ উপলক্ষ্যে শুক্রবার পর্যন্ত চলবে এই হাট ।
বছর জুড়েই মঙ্গলবার ঘিরে ব্যস্ত হয়ে ওঠে কলিয়া  পশুর হাট।  এই কলিয়া ইউনিয়নে আর্থিক কর্মকা-ের ভিত্ত্বি গড়ে দিয়েছে এই হাট।
যে কারণে হাট নির্ভর যাতায়াত, এনজিও ও হোটেলের মতো অনেক ব্যবসাই গড়ে উঠেছে এখানে। কলিয়া পশুর হাট পুরো এলাকাকে দিয়েছে বিশেষ পরিচিতি।
ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ বাস স্টান্ড থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার আর দৌলতপুর উপজেলা থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার দুরে কলিয়া  এই পশুর হাটের অবস্থান ।
এই হাটের ইজারাদার, মোঃ শহীদুল ইসলাম,  জানান হাটের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিৎ করার জন্য বলেন্টিয়ার রয়েছে এবং উপজেলা পশু চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করা হয়েছে। তিনি আরও জানান গরু প্রতি ১ হাজার এবং ছাগল প্রতি ৩শত টাকা হাসিল/খাজনা ধার্জ করা হয়েছে।
তবে সিরাজুল এবং হিরু বেপারী  বিক্রেতা হিসেবে  জানান এবছর তুলনা মূলক গরুর দাম কম। বাজারে প্রচুর গরু আসছে কিন্তু ক্রেতা কম থাকায় তেমন বিক্রি হচ্ছে না। আশা করছি আগামী পরশু থেকে বেশি বিক্রি হবে।
জাহাঙ্গীর আলম নামে এক ক্রেতা জানান আজ এসেছি গরু দেখতে। ঈদের আগের দুই দিনের মধ্যে গরু কিনব।
এব্যপারে মনির মেম্বার নামে এক ক্রেতা জানান, গত দুদিন ধরে বিভিন্ন পশুর হাটে গিয়ে দাম-ধর দেখেছি, তুলনা মুলক আজকের হাটে দাম কম মনে হলো তাই, এক লক্ষ ১০ হাজার টাকা দাম দিয়ে ক্রয় করেছি।
ছাগল বিক্রেতা নজরুল মিয়া জানান, গত বছরের  তুলনায় এ বছর অনেক কম দামে ছাগল বিক্রি করলাম ।

Share Button