বাগেরহাট প্রতিনিধি॥
বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে একটি অসহায় পরিবারের ভিটেবাড়ী এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসিরা দখল করে নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মোড়েল গঞ্জের নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের গুলিশা খালি কুচেমোড় ব্রিজ এলাকায়। শনিবার সকাল অনুমান আট,টার দিকে ৪০/৫০ জনের একটি সন্ত্রাসি দল দেশিয় অস্ত্র নিয়ে ওই এলাকার  আঃ জব্বার হাওলাদার (৯৫) এর বাড়ী সংলগ্ন  মৎসঘেরে প্রবেশ করে। এ সময় ওই বাড়ি ও মৎসঘেরে থাকা বিভিন্ন প্রজাতির দেশিয়বনজ এবং ফলের গাছ সহ প্রায় কয়েক হাজার গাছ কেটে ফেলে সন্ত্রাসিরা। বৃদ্ধ আঃ জব¦ারের বসত ঘরটি ও ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে। ভুক্তভুগি আঃ জব্বারের মেয়ে রুবিয়া(৪০) জানায় গুলিশাখালি গ্রামে আমার বাবার পৈত্রিক সুত্রে পাওয়া চার(৪) বিঘা জমরি উপর একটি মৎসঘের ও আমাদের বসত ঘর। শনিবার সকালে ৪০/৫০ জনের একদল সন্ত্রাসিরা সস্ত্রবস্থায় বাড়ী প্রবেশ করে এলো পাথাড়ি মারপিট শুরুকরে এবং গাছপালা কাটতে থাকে।আমরা স্থানীয় চেয়ারম্যান কে জানালে তিনি গ্রামপুলিশ পাঠিয়ে সন্ত্রাসিদের বাধাঁ দেয়। চেয়ারম্যানের নির্দেশ অমান্য করে তারা তান্ডব চালিয়ে যায় দুপুর বারটা পর্যন্ত্য।একই গ্রামের গনি হাওলাদারের ছেলে মধু হাওলাদার (২৭) ও করিম তালুকদারের ছেলে দেলোয়ার তালুকদার (৪২) এদের নেতৃত্বে এই সন্ত্রাসি তান্ডবচালায়। জানা গেছে আঃ জব্বারের এক ছেলে আঃ জলিল তার পৈত্রিক অংশের কিছু জমি এলাকার প্রবাসি ইব্রাহিম এর নিকট বিক্রি করে। খরিদ সুত্রে ইব্রাহিম তার ভাড়াটিয়া বাহিনি দিয়ে মৎসঘের ও বাড়ী দখলের জন্য পরিকল্পিত ভাবে এই হামলা চলিয়েছে। এ ব্যাপারে ওই ইউনিয়ন চেয়ার ম্যানের মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন ঘটনাটি আমি জানতে পেরে পরিষদ থেকে গ্রাম পুলিশ পাঠিয়ে ভুক্তভুগিদের নিরাপত্তা দেই,এবং থানা পুলি কে জানাই।তবে ওই বাড়িতে যা ঘটেছে তা খুবই ন্যাক্কার জনক, এরা থানাপুলিশ ও আইন মানে না। এ রিপোট লেখা পর্যন্ত  কোন মামলা হয়নি

Share Button