রংপুর অফিস॥
আগামী ২১ ডিসেম্বর রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের গণসংযোগ চালাচ্ছে ১৩জন মেয়র প্রার্থী। এতে নৌকা প্রতিক নিয়ে মাঠে কাজ করছেন  মেয়র প্রার্থী সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু। একই সময়ে নগরীতে গণসংযোগ চালাচ্ছেন ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে কাওছার জামান বাবলা। অন্যদিকে, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে মাঠে কাজ করছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ভাতিজা  হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ। নির্বাচনী গণসংযোগের মাঠ ঘুরে জানা গেছে, আসিফ স্বতন্ত্র  মেয়র প্রার্থী হিসেবে কাজ করায় জাতীয় পার্টির মনোনিত প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান  মোস্তফার মাঠ পর্যায় লাঙ্গল প্রতিক নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে তেমন কোনও প্রতিক্রিয়া নেই। এ ঘটনায় নগরীতে হতাশ হয়ে পড়েছে সাধারণ নগরবাসী। যদিও জাতীয় পার্টির মনোনিত প্রার্থী দেওয়া হয়েছে তা নাম মাত্র ব্যাবহার হচ্ছে। বাস্তবতায় তা নয়। এর কারণ হলো আসিফ সাবেক রাষ্ট্রপতির ভাতিজা হওয়ায় নগরীর সাধারণ মানুষ নগর পিতা হিসেবে দেখতে চান আসিফকেই । সাধারণ মানুষের অভিযোগ, গত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মনোনিত প্রার্থী নির্বাচনে হেরে যাওয়ায়  এবার নির্বাচনে আগেরমত আর ভুল করতে চান না। সিটি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল বুধবার। মনোনয়নপত্র জমা শেষ হলে নির্বাচন কমিশনার বলেন, গতবারের মত আগামী ২১শে ডিসেম্বর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কোনও প্রকার সমস্যা হবে না। রসিক নির্বাচনের স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আসিফ নগরীর ৩৩ ওয়ার্ডে নির্বাচনী গণসংযোগ চালাচ্ছেন। এর ফলে, জাপার মনোনিত প্রার্থীর দুর্গে ধ্বস নামার আসংকা। নগরীর সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ বলেন, আমরা বারবার ভুল করতে পারিনা। আমরা চাই শান্তিপূর্ণ নগরী। যে নগরপিতা  আমাদের মতো নিুো আয়ের মানুষের জীবিকার নিরাপত্তা দিতে পারেনাই। তেমন নগর পিতা আমাদের দরকার নেই।  নগর পিতা হিসেবে সাবেক সংসদ সদস্য  হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ কে আমরা দেখতে চাই। জানা  গেছে, সাবেক রাষ্ট্রপতি যখন সিএমএইচ এ ভর্তি ছিলেন, ঠিক ওই সময় বর্তমান জাতীয় পার্টির মনোনিত  প্রার্থী  মোস্তফা বহিস্কৃত ছিলেন সে সময় দলের হাল ধরেন এই আসিফ শাহরিয়ার। গত নির্বাচনের আগে জাতীয় পার্টির বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় বহিস্কৃত ছিলেন মোস্তফা। পরবর্তি সময়ে রসিক নির্বাচনে জাপার মনোনিত প্রার্থী হাঁস মার্কা প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে পরাজিত হয়। এর ফলে, আগামী ২১ শে ডিসেম্বর রসিক নির্বাচনে জাপার মনোনিত প্রার্থী  মোস্তফা লাঙ্গল প্রতিক নিয়ে মাঠে কাজ করলেও সাধারণ মানুষের লাঙ্গলের প্রতি তাকাবার কোনও সুযোগ নেই। নগরবাসীর চাওয়া  মার্কা নয়, আসিফই নগরবাসীর মুখ্য বিষয়। জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তফা একবারো ভাবে নি অতিতের কথা। ঠিক একই সময়ে সাবেক রাষ্ট্রপতির পাশে তার ভাতিজা ছাড়া আর কেউ ছিলনা । আজ তারই বাস্তবতার ইতিহাস। পাল্টে গেছে সেই দিনের কথা  জনগণ আজো তা ভুলেনি। সিটি কর্পোরেশনে ফোরলেন রাস্তা ঘোষনায় হলেও বাস্তবতায় তা নয়। আসিফ শাহরিয়ার জানান, আমি নির্বাচিত হলে নগরীর বেকার সমস্যা দুর করা হবে। এতে নেশাখোর ও ছিনতাইকারী কমে যাবে। এবং সবমিলে তিনি একটা ডিজিটাল নগরী উপহার দিতে চান সাধারণ মানুষদের।

Share Button