দুটি করে ম্যাচ জিতে ফাইনাল নিশ্চিত হয়েছে আগেই। বিদায় নিয়েছে টুর্নামেন্টের অপর দু’দল নেপাল ও ভুটান। লীগ পদ্ধতির মেয়েদের সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ ম্যাচে ভারতের সাক্ষাৎ হচ্ছে আজ স্বাগতিকদের সঙ্গে। মেয়েদের ফাইনালের আগে আরেকটি ফাইনাল দেখবেন দর্শকরা।
বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শুরু হবে ম্যাচটি। দিনের অপর ম্যাচে বেলা ২টা ৩০ মিনিটে মুখোমুখি হবে ভুটান ও নেপাল। ২৪ ডিসেম্বর ফাইনালে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও ভারত। পাঁচদিনের ব্যবধানে তিন ম্যাচ খেলছে তহুরা, মারিয়ারা। অনেকটাই ক্লান্ত তারা। ভুটানের বিপক্ষে ম্যাচে মাঠ থেকে তুলে নেয়া হয় প্রথম ম্যাচের হ্যাটট্রিক কন্যা তহুরা খাতুনকে। ইনজুরিতে পড়েছে তহুরা।
কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের কথায়, ‘তহুরার গ্রোইংয়ে ব্যথা রয়েছে। তাই তাকে বৃহস্পতিবারের ম্যাচে খেলাব না।’ কোচের কথায়, ‘তিন দিনে দু’টি ম্যাচ খেলেছে মেয়েরা। তারা ক্লান্ত। বিশ্রাম দরকার তাদের। তাছাড়া আমরা ফাইনাল নিশ্চিত করেছি। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচ আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তাই আগের একাদশের বেশ ক’জনের বদলে সাইডবেঞ্চের মেয়েদের সুযোগ দিতে চাই। যাতে তারাও খেলার সুযোগ পায়।’ তিনি যোগ করেন, ‘তবে আমরা ম্যাচ জিততে চাই। সাইডবেঞ্চের খেলোয়াড়রাও প্রথম একাদশের মতো শক্তিশালী।’
নেপালকে ৬-০ এবং ভুটানকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ। অন্যদিকে ভুটানকে ৩-০ এবং নেপালকে ১০-০ গোলে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ভারত। এই দু’দলই সমশক্তির। তবে ভারত নয়, বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখল ভুটান ম্যাচে দুই গোল করা ডিফেন্ডার আঁখি খাতুন। তার কথায়, ‘আমরা আমাদের সেরাটা দিয়েই খেলব ভারতের বিপক্ষেও। অবশ্যই লক্ষ্য থাকবে ম্যাচ জেতার। জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবছি না।
ভুটানের ম্যাচের মতোই খেলব আমি।’ তার সংযোজন, ‘আগের দু’ম্যাচে আমি ও তহুরা দলের জয়ে ভূমিকা রেখেছি। এ ম্যাচে তহুরা থাকবে না। আমি চেষ্টা করব দলকে জেতাতে। জানি ভারত শক্তিশালী। তবে আমরাও কম নই। ইনশাল্লাহ আমরাই জিতব।’ ইনজুরিতে পড়া তহুরার কথা, ‘এই ম্যাচে আমি বিশ্রাম নিচ্ছি। পায়ের গ্রোইংয়ে ব্যথা পেয়েছি। আশা করি ফাইনাল ম্যাচে খেলতে পারব। ওই ম্যাচে আমি দলকে জেতাব ইনশাল্লাহ।’
Share Button