বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করে বলেছেন, প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে বেগম খালেদা জিয়াকে একটা পরিত্যক্ত নির্জন কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে ফেলে রাখা হয়েছে। অন্যায়ের সঙ্গে কোনোদিন আপস করেননি বলে আজ এই অবস্থা। তিনি যাওয়ার সময় আমাদের মাথানত না করে গণতন্ত্র রক্ষার আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়ে গেছেন। আইনের যে ন্যূনতম সুযোগ-সুবিধা আছে, তাও তাকে দেয়া হচ্ছে না। রায়ের সত্যায়িত কপি দিতে করা হয়েছে তালবাহানা। খালেদা জিয়া বাইরে থেকে নির্বাচন করলে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসতে পারবে না জেনেই তাকে ষড়যন্ত্র করে কারারুদ্ধ করেছে। সেজন্য নীলনকশা বাস্তবায়ন করছে।
সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার ও তাঁর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। মানববন্ধনটির আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল।
নেতাকর্মীদের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, আসুন বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে আমরা সোচ্চার হই। আন্দোলনের মধ্য দিয়েই আমরা বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনবো ইনশাআল্লাহ। আজকে মা-বোনেরা জেগেছেন তাদেরকে আমি অনুরোধ জানাবো আপনারা সবাইকে নিয়ে রাস্তায় নামুন। দেশকে উদ্ধার করতে হবে, দেশনেত্রীকে উদ্ধার করতে হবে। কারণ এখন দেশ এবং খালেদা জিয়া এই দুটো যেমন একাকার হয়ে গেছেন তেমনিভাবে গণতন্ত্র এবং খালেদা জিয়াও একাকার হয়ে গেছেন। তাই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে আমাদের সমস্ত শক্তি দিয়ে, জনগণের শক্তি দিয়ে।
Share Button