কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি॥
উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল এবং ভারী বৃষ্টিপাতে কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, ধরলা, দুধকুমরসহ সবক’টি নদ-নদীর পানি দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাওয়ায় প্লাবিত হয়ে পড়ছে নদ-নদী তীরবর্তী নি¤œাঞ্চলগুলো। অপরদিকে, ভারতে থেকে ধেঁয়ে আসছে বন্যার সতর্ক সংবাদে নিরাপদে সরে যাচ্ছে অনেক পরিবার। কেউ কেউ আগাম বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে।
স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, গত ১২ ঘন্টায় ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে ৯৭ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদ সীমা ছুঁই ছুঁই করছে। তিস্তা নদীর পানি কাউনিয়া পয়েন্টে ৪৫ সেন্টিমিটার, ব্রহ্মপুত্রের পানি নুনখাওয়া পয়েন্টে ২০ সেন্টিমিটার ও চিলমারী পয়েন্টে ১৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
চরাঞ্চলের মানুষেরা জানান, যেভাবে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে তা অব্যাহত থাকলে তলিয়ে যাবে নিঁচু অঞ্চলের ঘর-বাড়ি, রাস্তা-ঘাটসহ আবাদি জমির ফসল। এদিকে ভারত থেকে পাঠানো বন্যার সতর্ক বার্তায় কিছুটা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে কুড়িগ্রাম জেলার ভিতর দিয়ে প্রবাহিত নদ-নদীর অববাহিকায় বসবাসকারী মানুষজন।
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়ের ফারাজীপাড়া গ্রামের বদিয়ত উল্লাহ জানান, সোমবার দুপুর থেকে ব্রহ্মপুত্রের পানি বাড়তে শুরু করেছে। শুনেছি ভারত থেকে পানি আসছে। এই নিয়ে কিছুটা দুঃচিন্তায় আছি। এ ব্যাপারে কথা হলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো: রফিকুল ইসলাম জানান, উজানে ভারতের জলপাই গুড়িতে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। তবে আতঙ্কিত হবার কিছু নেই।

Share Button