ছবি: সংগৃহীত

চলতি মৌসুমে ক্লাব ও জাতীয় দলের সবকটা ম্যাচে শুরু থেকে খেলছিলেন ৩৪ বছর বয়সি লিওনেল মেসি। তবুও মিলছিল না ‘ওপেন প্লে’ থেকে গোলের দেখা। অধরা গোলের দেখা পেলেন এমন এক দিনে, যেদিন বার্সেলোনা কোচ রোনাল্ড কোম্যান শুরুর একাদশের বাইরে রেখেছেন তাকে। তাতে রিয়াল বেতিসের মাঠ থেকে ৫-২ গোলের দুরন্ত জয় নিয়ে ফিরেছে বার্সেলোনা।

 শুরুর অর্ধে মেসিহীন বার্সেলোনা এগিয়ে যায় ২২ মিনিটে, উসমান দেম্বেলের গোলে। এরপর অ্যান্টোয়ান গ্রিজমান পেনাল্টি থেকে সুযোগ নষ্ট না করলে ব্যবধান আরো বাড়তো কাতালানদের। তা তো হয়ইনি, উলটা বিরতির ঠিক আগে গোল হজম করে বসে বার্সা।

বিরতির ঠিক পরে মেসি এলেন আনসু ফাতির বদলি হয়ে, খেলার মোড়ও বদলে গেল একটু পরেই। জর্দি আলবার ক্রসে ডামি করে বোকা বানালেন প্রতিপক্ষ গোলরক্ষক ক্লদিও ব্রাভোকে, ফাঁকা জালে গোল করে দলকে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে দেন গ্রিজমান।

পরে মেসি নিজেও নাম লিখিয়েছেন গোলের খাতায়। প্রথমবার পেনাল্টি থেকে, দ্বিতীয়টায় দীর্ঘ ৯৭ দিনের ‘ওপেন প্লে’ থেকে গোলখরা কাটে মেসির। সেই আগস্টে ন্যাপোলির বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গোল করার পর আর পেনাল্টি ছাড়া গোল পাননি বার্সা অধিনায়ক। শেষে গোলের তালিকায় উঠেছে ১৭ বছর বয়সি পেদ্রি গঞ্জালেসের নামও। তাতে ৫-২ ব্যবধানের বড় জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে কোচ কোম্যানের শিষ্যরা।

ম্যাচ শেষে মেসিকে একাদশের বাইরে রাখার কারণ ব্যাখ্যা করে কোম্যান বলেন, ‘লিও হালকা সমস্যা নিয়ে কিয়েভ ম্যাচটা শেষ করেছিল। আজ শুরু থেকে খেলার অবস্থায় ছিল না সে। তাকে বেঞ্চে রেখেছিলাম, যদি প্রয়োজন পড়ে! পুরোপুরি ফিট থাকলে সে শুরু থেকেই খেলতো।’

তবে গোল করার দিনে মেসি জয় পেলেও রোনালদো অবশ্য জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেননি। ল্যাজিওর বিপক্ষে গতকাল রবিবার ১৫তম মিনিটে তার গোলে এগিয়ে যায় জুভেন্তাস। তবে অন্তিম সময়ে গোল হজম করে আরও একবার ড্রয়ে বাধ্য হয়েছে কোচ আন্দ্রেয়া পিরলোর দল। তবে জয়ে ফেরার দিনে বড় একটা ধাক্কাও খেয়েছে বার্সেলোনা। তরুণ ফরোয়ার্ড আনসু ফাতি হাঁটুর চোটে ছিটকে গেছেন কমপক্ষে তিন সপ্তাহের জন্য। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমে গুঞ্জন জানুয়ারির আগে তাকে পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম বার্সেলোনার!

Share Button