টেস্ট আঙ্গিনায় পা রাখার মাহেন্দ্রক্ষণের শুরুটা হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে (বাঁয়ে)। শুরুর আগে দুই অধিনায়ক —ফাইল ছবি

এই যেন সেদিনের কথা। বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে হারানো, কূটনৈতিক তত্পরতা মিলিয়ে টেস্ট স্ট্যাটাস পেয়ে গেল বাংলাদেশ। সাজ সাজ রবের ভেতর দিয়ে ২০০০ সালের ১০ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট খেলতে নামল বাংলাদেশ।

 দেখতে দেখতে ২০ বছর পার হয়ে যাচ্ছে সেই ঘটনার। ২০ বছর আগে ঠিক আজকের দিনটাতেই প্রথমবারের মতো কোনো বাংলাদেশি টেস্ট অধিনায়ক পাঁচ দিনের ম্যাচের টস করতে নেমেছিলেন মাঠে। আজ এই ২০ বছর পূর্তির সময়ে পেছন ফিরে দেখতে গিয়ে বাংলাদেশের সেই টেস্টের নায়কেরা বলছেন, সেটা ছিল এক উত্সবের মুহূর্ত।

প্রথম টেস্টে ১৪৫ রানের ইনিংস খেলে ইতিহাসে নাম লিখিয়ে ফেলেছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল। সেই টেস্টটা পেছন ফিরে দেখতে গিয়ে তিনি ক্রিকইনফোকে বলেছেন, ‘সেটা একটা রোমাঞ্চকর সময় ছিল। এই জগত্ সম্পর্কে আমাদের খুব একটা ধারণা ছিল না। আমরা ওয়ানডে সম্পর্কে জানতাম। ফলে একাদশ নিয়ে আমাদের ধারণা ছিল যে, দুই জন ফাস্ট বোলার, তিন জন স্পিনার, এক জন উইকেটরক্ষক আর পাঁচ জন ব্যাটসম্যান।’

সেই সময়টার কথা খুব ভালো করে মনে আছে বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের। তিনি বলছিলেন, সেটা তার কাছে একটা উত্সবের মতো ব্যাপার ছিল, ‘ওটা একটা উত্সব ছিল। একটা আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ছিল। সেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও অতীতের অনেক ক্রিকেট গ্রেটরা এসেছিলেন। আমাদের সবাই খুব সাপোর্ট করেছিলেন। আমি বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়কত্ব করছি, দলকে পরের ধাপে নিয়ে যাচ্ছি; এটা অসাধারণ একটা অনুভূতি ছিল।’

সেই ম্যাচে ওপেনার ছিলেন শাহরিয়ার হোসেন বিদ্যুত। তিনি বাংলাদেশের টেস্ট ইতিহাসে প্রথম বলটা খেলেছিলেন। সেই অনুভূতি বলতে গিয়ে বলেছেন, ‘টেস্টে নিজের দেশের হয়ে প্রথম বলটা খেলার যে অনুভূতি এটা প্রকাশ করা খুব কঠিন। এই গর্ব আমার কাছ থেকে কেউ নিতে পারবে না।’

টেস্টে দারুণ একটা ইনিংস খেলেছিলেন হাবিবুল বাশার। তিনি বলছিলেন, তিনি খুব নার্ভাস ছিলেন, ‘আমার দুই কান দিয়ে ধোয়া বের হচ্ছিল। মনে হচ্ছিল, পেটের ভেতর প্রজাপতি নাচছে। মনে খুব দ্বিধা ছিল। টেস্ট তো ভিন্ন একটা খেলা, তাই না? ওদের বোলিংও খুব ভালো ছিল।’

Share Button