পাবনা প্রতিনিধি:
পাবনায় বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাবডিভিশন সুজানগরের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী ইমরান হোসেন চাকুরির বয়স ২ বছর না পেরুতেই শহরের অভিজাত এলাকায় কোটি টাকার বাড়ি নির্মাণ করছেন। ইতামধ্যে দুইতলার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা নিয়ন্ত্রন রক্ষা বাঁধ নির্মান কাজে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে এসডিই ইমরানের বিরুদ্ধে। স্থানীয় বাসিন্দা রইস উদ্দিন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগে জানা যায়, পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী ইমরান হোসেন পাবনা শহরের শিবরামপুর কালাচাঁদ পাড়ার স্যার সলিমুল্লাাহ লেনে চার কাঠা জমির উপর বহুতল ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। ইতোমধ্যে দ্বিতল ভবনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তৃতীয় তলা নির্মাণাধীন। পানি উন্নয়ন বোর্ডের এসডিই ইমরান হোসেনের বাবা আব্দুস সাত্তার বিসিক শিল্পনগরীতে চাকুরি করতেন। অনেক বছর আগেই তিনি চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণ করেছেন। ছেলে চাকুরি পাওয়ার দু বছর না পেরুতেই অর্থবিত্তের মালিক হয়ে পড়েছেন।
এদিকে একটি বিশ্বস্ত সূত্র দাবী করছে, চাকুরিতে যোগদানের পরপরই পাবনার সুজানগরে দুবারের বন্যায় ইমার্জেন্সি ওয়ার্কে নদী ভাঙ্গন রোধে ভাঙ্গন কবলিত এলাকাগুলোতে জিওবি ব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধ করার উদ্যোগ নেয়া হয়। ওই সময়ে পাউবোর অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজসে কতিপয় ঠিকাদারের মাধ্যমে ব্যাপক দূর্নীতি ও অনিয়ম করা হয়। সেখান থেকে তিনি বিপুল পরিমান টাকা দুর্নীতি করে অর্থবিত্তের মালিক হয়েছেন।
ভাঙ্গন কবলিত এলাকাগুলোর একাধিক মানুষের অভিযোগ, ভাঙ্গন রোধে জরুরী কাজের নামে নাম মাত্র জিওবি ব্যাগ ফেলে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতি করা হয়েছে। অবিলম্বে এই অনিয়ম ও দুর্নীতির সঠিক তদন্ত করা দরকার। স্থানীয় বাসিন্দা রইস উদ্দিন এব্যাপারে দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন। তিনি তদন্ত পুর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী করেছেন।
এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের এসডিই ইমরান হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, স্বচ্ছতার সাথে চাকুরি করছি। বাবার চাকুরির অবসরের টাকা ও জমি বিক্রি করে বাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে।

Share Button