নিহত সাংবাদিক জামাল খাসোগি।

আলোচিত সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যার আগে তাকে হুমকি দিয়েছিলেন সাবেক এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা। ফোনে পাওয়া সেই হুমকি শুনে এক পর্যায়ে কেঁদে দেন খাসোগি। মঙ্গলবার তুরস্কের আদালতে এ খবর জানান জামাল খাসোগির এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু মিসরের আইমান নূর।

খাসোগির দীর্ঘদিনের বন্ধু মিসরের রাজনীতিবিদ আইমান নূর জানান, খাসোগিকে হুমকি দেওয়া সেই কর্মকর্তা হলেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত সাবেক গোয়েন্দা কর্মকর্তা কাহতানি আল সৌদ।

খাসোগির বন্ধু আদালতকে জানান, ২০১৬ সাল থেকে কাহতানি প্রতিনিয়ত হুমকি দিয়ে আসছেন বলে তাকে জানান খাসোগি। ওয়াশিংটনে থাকার সময় খাসোগিকে ফোনে কাহতানি বলেছিলেন, খাসোগি ও তার সন্তানরা কোথায় থাকে তা তারা জানে। এরপর খাসোগি কেঁদে দেন এবং আইমান নূরকে জানান, তিনি খুবই ভয় পেয়েছেন।

৫৯ বছর বয়সী সাংবাদিক খাসোগিকে ইস্তান্বুলের সৌদি দূতাবাসে ২০১৮ সালের ২ অক্টোবর হত্যা করা হয়। তিনি এক তুর্কি নারীকে বিয়ের প্রস্তুতি হিসেবে কাগজপত্র সংক্রান্ত বিষয়ে দূতাবাসে গিয়েছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ বলছে, সৌদি প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান এই হত্যাকাণ্ডের নির্দেশ দেন বলে তাদের ধারণা। তবে সৌদি কর্মকর্তারা এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

খাসোগি হত্যা নিয়ে প্রথম থেকেই সরব ছিল তুরস্ক। দেশটি বরাবরই এটিকে হত্যাকাণ্ড বলে উল্লেখ করেছে।

গত ২০ অক্টোবর সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ও অন্যান্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মার্কিন আদালতে মামলা করেছেন নিহত সাংবাদিক জামাল খাশোগির বাগদত্তা খাদিজা সেনজিজ। এএফপি।

Share Button