ঢাকার হোটেল রেডিসনব্লু’তে আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট (এডব্লিউটি) ও সিংগাপুরের র‌্যাফেলস ইনফ্রাস্ট্রাকচার হোল্ডিংসলিমিটেডের (আরআইএইচএল) মধ্যে সোমবার চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এ্যাডজুটেন্ট জেনারেল ও এডব্লিউটিরভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. এনায়েতউল্ল্যাহ, ও এসপি, বিএসপি, এনডিইউ, পিএসসি অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে ট্রাষ্ট গ্রীণ সিটি প্রজেক্টের পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেজর জেনারেল মো. নাঈম আশফাক চৌধুরী, এসবিপি, ওএসপি, এসইউপি, পিএসসি (অব.) এবং আরআইএইচএলএর বাংলাদেশ প্রতিনিধি লে. কর্নেল হারুন উর রশিদ চৌধুরী (অব.) ও মিঃ জ্যু রেনফুনিজ নিজ সংস্থার প্রতিনিধিত্ব করেন।

এই চুক্তির মাধ্যমে ট্রাষ্ট গ্রীণ সিটির উন্নয়ন সহায়ক ফার্ম হিসাবে আরআইএইচএল গ্রুপকে নিযুক্ত করা হলো।

এডব্লিউটি সমাজ তথা দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নতির মহৎ উদ্দেশ্যে একটি আধুনিক, স্মার্ট, প্রকৃতিবান্ধব ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ সম্বলিত শহর তৈরী করার জন্য একটি প্রকল্প হাতে নেয়।

বিগত ২০০০ সাল হতে মিরপুর ডিওএইচএস ও উত্তরা সংলগ্ন বাউনিয়া এলাকায় জমি কেনার মাধ্যমে প্রকল্পটির কাজ শুরু হয়। ক্রমবর্ধমান ঢাকা শহরের আবাসন অপ্রতুলতা ও আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত আবাসন সমস্যার সমাধানকল্পে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী একটি অত্যাধুনিক আবাসনব্যবস্থা তৈরীর প্রয়াস নেয়।

প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে প্রাকৃতিক ও কৃত্রিমনান্দনিক সৌন্দর্য্য সমন্বিত এবং আধুনিক প্রযুক্তি ও সুবিধা সম্বলিতসবুজ, নয়নাভিরাম, প্রকৃতিবান্ধব আবাসন ব্যবস্থাপনা তৈরীকরা, যা হতে পারে বাংলাদেশ তথা এশিয়ার জন্য একটি মডেল স্বরুপ।

ট্রাষ্ট গ্রীণ সিটি হবে নিরাপদ, প্রাণবন্ত ও টেকসই সেই আধুনিক মডেল শহরের সমাধান, যা বাংলাদেশের সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজি) অর্জনে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

উল্লেখ্য, একটি নিরপেক্ষ ও দীর্ঘ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অন্যান্য ফার্মের সাথে প্রতিযোগিতা করে আরআইএইচএল’ কে ট্রাষ্ট গ্রীণ সিটির নির্মাণ কাজে নিয়োগ দেওয়া হয়।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এডব্লিউটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও অন্যান্য ঊধর্তন সামরিক ও অসামরিক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

Share Button