[ব্রাজিলের প্রাক্তন তারকা ফুটবলার রোবিনহো। ছবি: সংগৃহীত]

২০১৩ সালে একটি ধর্ষণের মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন ব্রাজিলের প্রাক্তন তারকা ফুটবলার রোবিনহো। সেই মামলার রায়ে তাকে ৯ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে মিলানের একটি আদালত।

জানা গেছে, ২০১৩ সালে মিলানের একটি নাইটক্লাবে আলবেনীয় বংশোদ্ভূত এক নারীকে ধর্ষণ করেছিলেন রোবিনহো। এরপরই আদালতে মামলা করেন ওই নারী। মামলায় নাম জড়ায় রোবিনহো এবং তার বন্ধু রিকার্ডো ফ্যালকোর।

এদিকে সম্প্রতি রোবিনহো বিষয়টি অস্বীকার করে বলেছেন, ‘ওই নারী মাতাল অবস্থায় ছিলো। তাই সে না জেনে আমার নামে অভিযোগ করেছে। ধর্ষণের বিষয়টি সত্য নয়।’

২৩তম জন্মদিন পালন করতে সেদিন নাইট ক্লাবটিতে এসেছিলেন ওই নারী। রোবিনহো সেই সময় ইতালির সিরি ‘এ’ লিগের ক্লাব এসি মিলানেই খেলতেন। তিনি ও তার বন্ধুরা ঘটনার দিন ওই নাইট ক্লাবেই গিয়েছিলেন। তারপরই ক্রমে ওই মেয়ের সঙ্গে পরিচয় হয় রোবিনহোদের। তারপরই তাকে সবাই মিলে ধর্ষণ করেছিলেন। আদালতে করা অভিযোগে এমনটাই জানান ওই নারী। ২০১৭ সালে ইতালির একটি আদালত রোবিনহোকে ৯ বছরের সাজা দিয়েছিলো। সেই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হলে ইতালির আপিল আদালতও পূর্বের সাজাই বহাল রাখার নির্দেশ দেয়।

এ প্রসঙ্গে ওই তরুণীর আইনজীবী ইয়াকোপো জিনোচ্চি বলেছেন, ‘‌নারীদের সুরক্ষার বিষয়ে আইন যে আইনের পথেই চলবে, সবরকম নিয়ম মানা হবে, আদালতের এদিনের রায় সেটাই প্রমাণ করল।’‌

২০১৭ সালে সেই রায়ের পর থেকেই ইতালি যাননি রোবিনহো। জেলের শাস্তি এড়াতে ইতালিতে গিয়ে খেলার চিন্তা বাতিল করেন তিনি।

চলতি বছরের অক্টোবরে ৩৬ বছর বয়সী রোবিনহোকে সই করেছিল ব্রাজিলের নামী ক্লাব স্যান্টোস। কিন্তু এরপরই তুমুল প্রতিবাদের মুখে রোবিনহোর সঙ্গে চুক্তি বাতিল করে দেয় ক্লাবটি।

ক্লাবের পক্ষ থেকে বিবৃতিতে বলা হয়, ‌‘‌ইতালিতে যে মামলা বিচারাধীন রয়েছে তার অগ্রগতি কি হয় আমরা নজর সেদিকে। রায় রোবিনহোর পক্ষে গেলে তবেই তাকে আবার দলে নেওয়া হবে।’‌

Share Button