[ছবিঃ সংগৃহীত]

ভাস্কর্যবিরোধীদের শুধু প্রতিহতই না, নির্মূল করা হবে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

নৌ মন্ত্রণালয় আয়োজিত বিজয় দিবসের আলোচনা সভায় ভাস্কর্যবিরোধীদের উদ্দেশ্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা পরিষ্কারভাবে বলে দিতে চাই, আমরা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী পালন করেছি। আমরা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করব আগামী ২৬ মার্চ থেকে। এ সময় এসব কোন কথাবার্তা বরদাশত করা হবেনা। বাংলার ১৮ কোটি মানুষ সেগুলো সহ্য করবেনা। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে এগুলো শুধু প্রতিহত করবো না। এগুলোকে নির্মূল করব। এদের নির্মূল করব প্রকৃত মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে।

রাজধানীর মতিঝিলে বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) বিআইডব্লিউটিএ কার্যালয়ের হলরুমে দুপুরে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পরাজিত শক্তি আবারো ধর্মের কোলে আশ্রয় নিয়েছে মন্তব্য কওে প্রতিমন্ত্রী বলেন, একাত্তরে যারা বলেছিল, বাংলাদেশ স্বাধীন হলে দেশ ভারত হয়ে যাবে। এদেশে কোন ইসলাম থাকবেনা। আওয়ামী লীগ যদি ক্ষমতায় যায়, এখানে মসজিদে কোন আজান হবেনা; উলুধ্বনি হবে। এইতো ছিল অবস্থা। আজকে তারা পরাজিত হয়ে আবারো সেই পথে।

খালিদ বলেন, আজকে তারা দেখছে দেশের প্রতিটি উপজেলায় মডেল মসজিদ হচ্ছে। সেখানে ইসলামিক কমপ্লেক্স হচ্ছে। গ্রামে গ্রামে মসজিদভিত্তিক ইসলামিক শিক্ষা চালু হচ্ছে। মানুষ ধর্মটাকে জানতে পারছে। ধর্মের মর্মবাণীটাকে ধারণ করছে। প্রকৃত ইসলামকে ধারণ করে এগিয়ে যাচ্ছে। তখনই আবার নতুনভাবে তথাকথিত ফতোয়াবাজরা মাঠে নেমেছে। এরা শিক্ষিত; কিন্তু তাদের প্রকৃত শিক্ষাটাকে ব্যবহার করতে চায়না। কারণ তাদের একটা রাজনৈতিক এজেন্ডা আছে। তারা বিভ্রান্তিমূলক ফতোয়া দিয়ে এবং বিকৃত কথাবার্তা বলে বাংলাদেশকে আবার বিপথগামী করতে চায়।

এই যে উন্নয়ন, ধর্মের প্রতি মানুষের আনুগত্য, সঠিক ধর্মচর্চা- এটা তাদের পছন্দ হচ্ছে না বলেই, তারা ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে কথা বলছে। স্মৃতিসৌধের বিরুদ্ধে কথা বলছে। আমাদের এগিয়ে যাওয়া থামিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে।

নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক, বিআইডব্লিউটিসি’র চেয়ারম্যান সৈয়দ মো: তাজুল ইসলাম, স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কে এম তরিকুল ইসলাম, সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমোডর আবু জাফর মো: জালাল উদ্দিন। অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এস এম আবুল কালাম আজাদ, মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম শাহজাহান।

Share Button