প্রশ্ন কঠিনের অভিযোগে বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর।

প্রশ্ন কঠিনের অভিযোগে বার কাউন্সিলের লিখিত পরীক্ষা নিয়ে তুলকালাম ঘটনা ঘটেছে। শনিবার সকাল ৯টা থেকে ঢাকার ১০টি কেন্দ্রে প্রায় ১৩ হাজার পরীক্ষার্থী অংশ নেন। কিন্তু প্রশ্নপত্র হাতে পাওয়ার পর পরীক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। তাদের অভিযোগ, প্রশ্নপত্র কঠিন হয়েছে। এই ঘটনায় ইতিমধ্যে ১২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ, করোনার প্রকোপের কারণে লিখিত পরীক্ষা না নিয়ে শুধু ভাইভার মাধ্যমে আইনজীবী সনদ দেয়ার দাবিতে আন্দোলন করায় প্রশ্ন অস্বাভাবিক কঠিন করা হয়েছে। কেউ কেউ অভিযোগ করেন, নির্ধারিত বইয়ের ভেতর থেকে প্রশ্ন করা হয়নি।

সকাল সোয়া ৯টার দিকে পুরান ঢাকার মহানগর মহিলা কলেজ কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, সব রুমের পরীক্ষার্থীরা শুরুতে হৈ-হুল্লোড় শুরু করেন। এক পর্যায়ে রুম থেকে বের হয়ে যান। এতে কেন্দ্রজুড়ে আতঙ্ক দেখা দেয়। একই ধরনের ঘটনা ঘটেছে মোহাম্মদপুর সরকারি স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রেও। সেখানে পরীক্ষাকেন্দ্রে ভাঙচুরও করা হয়েছে।

লক্ষ্মীবাজারে ঢাকা মহানগর মহিলা কলেজে পরীক্ষা শুরু হলে প্রথমেই কিছু শিক্ষার্থী ‘প্রশ্ন ঠিক হয়নি’ বলে অভিযোগ করেন। এরপর তাদের সঙ্গে অনেকেই যুক্ত হন। এক পর্যায়ে তারা সিট থেকে উঠে পড়েন। এ নিয়ে পরীক্ষা হলে হট্টগোল শুরু হয়। এ সময় কিছু পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়ার চেষ্টা করলেও বাকিরা তাদের অনুৎসাহিত করে। তারা পরীক্ষার্থীদের খাতা টেনে নিয়ে বাইরে চলে যান।

এ বিষয়ে বার কাউন্সিলের সচিব রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা দুইটি হলে এ রকম ঘটনা শুনতে পেয়েছি। যারা পরীক্ষা না দেয়ার আন্দোলন করেছিল, তারাই এমনটি করছে।আমরা বসে সিদ্ধান্ত নেব। তবে পরীক্ষা আপাতত চলবে।

ডিএমপির মোহাম্মদপুর জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) মৃত্যুঞ্জয় দে সজল জানান, বিক্ষোভ ও ভাঙচুর চালানোর অভিযোগে ১২ জনকে আটক করে পুলিশ।

Share Button