জয়ের পর নিউজিল্যান্ডের দুই ব্যাটসম্যান। ছবি : ক্রিকবাজ

স্বপ্নের অভিষেকের পরের ম্যাচেই বেঞ্চে বসে জ্যাকব ডাফি। কেন না সিনিয়রদের জায়গা করে দিতে হবে দলে। তাতে আরো শক্তিশালী হয়ে ওঠে নিউজিল্যান্ড। পাকিস্তানকে পাত্তা না দিয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিশ্চিত করে স্বাগতিকরা।

 টিম সাউদির পেস তোপ ও টপ অর্ডারদের কল্যাণে হ্যামিলটনে রবিবার সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে সফরকারীদের ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারায় কেন উইলিয়ামসনের দল।

নিয়মিত অধিনায়ক বাবর আজমের অভাবটা বেশ ভালোভাবেই টের পাচ্ছে পাকিস্তান। প্রথম ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও ব্যর্থতা উপহার দেয় টপ অর্ডাররা। তবে মোহাম্মদ হাফিজের দুর্দান্ত ইনিংসে স্বাগতিকদের সামনে ৬ উইকেটে ১৬৩ রানের পুঁজি দাঁড় করায় শাদাব খানের দল।

জবাবে শুরুতে মার্টিন গাপটিলের উইকেট হারালেও ঝামেলায় পড়তে হয়নি কিউইদের। দ্বিতীয় উইকেটে ওপেনার টিম সেইফার্ট ও উইলিয়ামসনের ১২৬ রানের জুটির সুবাদে চার বল হাতে রেখেই জয় নিয়ে ফেরে স্বাগতিকরা। ৬৩ বলে ৮ চার ও ৩ ছয়ে সর্বোচ্চ ৮৪ রানে অপরাজিত থাকেন টানা দ্বিতীয় ফিফটি করা সেইফার্ট। অপরদিকে বাবা হওয়ার পর প্রথম খেলতে নেমেই ৪২ বলে ৮ চার ও ১ ছয়ে ৫৭ রানের ইনিংস সাজান উইলিয়ামসন।

এর আগে পাকিস্তানের ইনিংসে বল হাতে ঝড় তুলেন সাউদি। পাওয়ার প্লের মধ্যে সাজঘরে পাঠান তিন ব্যাটসম্যানকে। চাপের মধ্যে দলের হাল ধরেন ‘বুড়ো’ হাফিজ। কিন্তু অপর প্রান্তে সঙ্গ দেননি কেউই। দুইবারের জীবনে ৫৭ বলে ১০ চার ও ৫ ছয়ে সাজান অপরাজিত ৯৯ রানের ইনিংসটি।সেঞ্চুরি বঞ্চিত থাকলেও জয় দিয়ে সেই আক্ষেপটা মেটাতে চেয়েছিলেন হাফিজ। কিন্তু শেষে সাউদির পারফরম্যান্সটাই মূল্যবান হয়ে ওঠে। ২১ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন ডানহাতি পেসার।

Share Button