রংপুর ব্যুরো:

রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আবদুল ওয়াহাব ভূঞা বলেছেন,আমাদের বয়স বাড়ার সাথে সাথে কিছু কৃত্রিম আংশিক জারিত তেলে (ভেজিটেবল অয়েল বা উদ্ভিজ্জ তেল পাম, সয়াবিন) হাইড্রোজেন যুক্ত করলে তেল জমে যায় ও ট্রান্সফ্যাট উৎপন্ন হয়। ফলে আমাদের দেশে প্রতি বছরে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়। ২০১৩ সালে ট্যান্সফ্যাট সম্পর্কে বাংলাদেশ সরকার একটা মাইল ফলক স্থাপন করেন। বিশ্বে ট্যান্সফ্যাট সম্পর্কে কোন নির্তিমালা নেই। মাত্র কয়েকটা দেশে এই আইনের বাস্তবায়ন রয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে সবধরণের ফ্যাট, তেল ও খাদ্যপণ্যে ট্রান্সফ্যাটের সর্বোচ্চ সীমা মোট ফ্যাটের ২ শতাংশ নির্ধারণ ও কার্যকর করতে হবে। আমরাও সেই লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছি। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন, প্রজ্ঞা এবং কনজুমার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর যৌথ উদ্যোগে “এডভোকেসি ফর লিমিটিং ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রান্স-ফ্যাট ইন ফুড ” প্রকল্পটি গ্লোবাল হেলথ্ এডভোকেসি ইনকিউবেটর এর সহায়তায় বাস্তবায়ন করছে। আজ সোমবার দুপুরে এই প্রকল্পটির একটি কার্যক্রম হিসাবে রংপুর বিভাগীয় পর্যায়ে খাদ্যে ট্রান্সফ্যাট, হৃদরোগ ঝুঁকি এবং করনীয় : ভোক্তা পরিপ্রেক্ষিত সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সভায় রংপুর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক আসিব আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আবদুল ওয়াহাব ভূঞা,বিশেষ অতিথি ছিলেন রংপুর সিভিল সার্জন ডাঃ হিরম্ব কুমার রায়। সেমিনারে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ক্যাব রংপুর জেলা সভাপতি আব্দুর রহমান। মুল প্রবন্ধ ও বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করেন ক্যাব প্রোজেক্ট কো অর্ডিনেটর খন্দকার তৌফিক আলহোসাইনী,প্রজ্ঞা প্রজেক্ট কো অর্ডিনেটর মাহমুদ আল ইসলাম শিহাব। এসময় উপস্থিত ছিলেন ক্যাব রংপুর জেলা সাধারন সম্পাদক আহসান উল-হক তুহিন,ক্যাব রংপুর মহানগর শাখার সাধারন সম্পাদক আব্দুর রহমান রাসেল প্রমুখ।