ছবি: সংগৃহীত।

অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার পর ভারত বায়োটেকের করোনা ভ্যকসিনকে ছাড়পত্র দিল ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তৈরি বিশেষজ্ঞ প্যানেল। শনিবার এই ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

তবে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে ‘নিয়ন্ত্রিত জরুরি প্রয়োগ’-এর জন্য। এখন অপেক্ষা চূড়ান্ত ছাড়পত্রের। চূড়ান্ত ছাড়পত্র দেবে ভারতের ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘ড্রাগ কন্ট্রোল জেনারেল অব ইন্ডিয়া’ বা ডিসিজিআই। ডিসিজিআই-এর ছাড়পত্র পেলেই টিকার রাস্তা পরিস্কার হবে।

ভারত বায়োটেকের পক্ষ থেকে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে ২৫ হাজার ৮০০ জনের ওপর। যার মধ্যে ২৩ হাজার মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। যাদের ওপর প্রয়োগ করে বোঝা গিয়েছে, এটি নিরাপদ। কিন্তু কতটা কার্যকর, সেটা সম্পূর্ণ বুঝতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। জানা গেছে, ভ্যাকসিনটির এক কোটি ডোজ ইতিমধ্যে প্রস্তুত করা হয়েছে। আগামী মার্চের মধ্যেই ভ্যাকসিনটির ট্রায়ালের পুরো ফল প্রকাশ করা হবে বলে ভারত বায়োটেকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।