ছবি: সংগৃহীত।

সংস্থাটির এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে , বিভিন্ন উৎস থেকে প্রাপ্ত তথ্যে এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, জিনজিয়াংয়ের মুসলিম বন্দিদের মাধ্যমে জোর করে কাজ করানো হচ্ছে। তাদের ঋণের ফাঁদে আটকে ফেলা হচ্ছে, চলাচলে বাধা সৃষ্টি করা হচ্ছে।

বিবৃতি প্রকাশের পাশাপাশি বলা হয়েছে, চীন সরকারের এসব কর্মকান্ডের কড়া সমালোচনা করছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন স্বরাষ্ট্র বিভাগ জানিয়েছে, অন্তত ১০ লাখ উইঘুর মুসলিমকে বন্দি করে রাখা হয়েছে। সেখানে তুলা ও টমেটো উৎপাদনে উইঘুরদের দিয়ে জোরপূর্বক কাজ করানোর প্রমাণ পাওয়া গেছে। বিশ্বের প্রায় এক-চতুর্থাংশ তুলা উৎপাদন হয় জিনজিয়াংয়ে। সেগুলো জোরপূর্বক শ্রমে উৎপাদিত হচ্ছে কি না তা পর্যবেক্ষণে টেক্সটাইল শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো যথেষ্ট সচেতন নয় বলেও উদ্বেগ রয়েছে আন্তর্জাতিক মহলে।

এর আগে যুক্তরাজ্যসহ একাধিক দেশ উইঘুরদের সঙ্গে চীনের আচরণ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে। অবশ্য চীন বরাবরই এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে।