ছবিঃ সংগৃহীত

ডার্ক চকোলেট কেনো খাবেন? এতে নানা ধরনের পুষ্টি উপাদান রয়েছে। মূলত কোকো গাছের বীজ থেকে চকোলেট তৈরি হয়। চকোলেট হলো পৃথিবীতে সব থেকে উৎকৃষ্ট অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের উৎস। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে ডার্ক চকোলেট হৃদপিণ্ডের রোগ হবার প্রবণতা কমিয়ে আনে এবং শরীরকে সুস্থ রাখে।

উনবিংশ শতাব্দীর শুরুর দিকে আধুনিক দক্ষিণ আমেরিকার প্রাচীন প্রাক-ওলমেক সম্প্রদায় কোকো পাউডার ব্যবহার করতো নানা ধরনের মিষ্টি, চকোলেট পানীয় তৈরি করতে। তারা সে খাবার গুলো খেতেন সন্ধ্যার খাবার হিসেবে।

যখন ইউরোপীয়রা আমেরিকা উপনিবেশ স্থাপন শুরু করে, ভ্রমণকারীরা চকোলেটের প্রথম সংস্করণটি স্প্যানিশ কোর্টে পাঠান, সেখানে চকোলেট রাতারাতি সকলের মন কাড়ে। তখন থেকেই, সারা বিশ্ব জুড়ে চকোলেট তৈরি এবং চকোলেট দিয়ে আরও নানান ধরনের খাবারের সাথে মিশিয়ে পরীক্ষা করা হয়। এভাবে চলতে চলতে এখন আমরা পাচ্ছি এত রকমের চকোলেট।

জেনে নেই চকোলেটের দারুণ কিছু গুনাগুন

  • অত্যন্ত পুষ্টিকর।
  • অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের উৎকৃষ্ট উৎস।
  • উচ্চ রক্ত চাপ কমিয়ে আনে।
  • ইনসুলিন সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি করে।
  • হৃদপিণ্ডের সমস্যা থেকে রক্ষা করে।
  • কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে।
  • ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে রক্ষা করে।
  • মস্তিষ্কের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
  • রক্ত জমাট বাঁধা রোধ করতে সহায়তা করে।

অবশ্যই, সুস্বাস্থ্যের জন্য চকোলেটের যথেষ্ট ভূমিকা রয়েছে। তবে তার মানে এই নয় যে সারাদিন চকোলেট খাওয়া যাবে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত চকোলেট কখনই খাওয়া যাবে না। আর এটাও মনে রাখতে হবে যে বাজারে পাওয়া সকল চকোলেট স্বাস্থ্যকর নয়। চকোলেট কেনার ক্ষেত্রেও যথেষ্ট সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।