ছবিঃ সংগৃহীত

আওয়ামী লীগ ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের অংশগ্রহণে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২১-২০২২ কার্যনির্বাহী কমিটির দুই দিনব্যাপী নির্বাচনের প্রথম দিনের ভোটগ্রহণ চলছে। এই নির্বাচনে দুই শিবিরের পক্ষ থেকে শক্তিশালী দুটি প্যানেল নির্বাচনে লড়াই করছে। কালও ভোটগ্রহণ চলবে।

বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) সকাল ১০টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। দুপুরে একঘণ্টা বিরতি দিয়ে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলবে ভোট গ্রহণ। এবারের নির্বাচনে সাত হাজার ৭১৯ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

নির্বাচন পরিচালনার জন্য অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এ এফ এম আব্দুর রহমানের নেতৃত্বে সাত সদস্যের নির্বাচন উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। এবারের নির্বাচনে ১৪টি পদের বিপরীতে মোট ৫১ জন প্রার্থী লড়ছেন।
৭টি সম্পাদকীয় পদের বিপরীতে ২৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। এর মধ্যে সভাপতি পদে ৫ জন, দুটি সহ-সভাপতি পদের বিপরীতে ৬ জন, সম্পাদক পদে ৪ জন, কোষাধ্যক্ষ পদে ৪ জন এবং ২টি সহ-সম্পাদক পদের বিপরীতে ৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। বাকি ৭টি কার্যনির্বাহী সদস্য পদের জন্য ২৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

নির্বাচনে সরকার সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের (সাদা প্যানেল) প্রার্থীরা হলেন- সভাপতি পদে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু, দুই সহ-সভাপতি পদে মুহাম্মদ শফিক উল্ল্যা এবং মো. আলী আজম, সম্পাদক আবদুল আলীম মিয়া জুয়েল, কোষাধ্যক্ষ ড. মো. ইকবাল করিম, দুই সহ-সম্পাদক পদে ব্যারিস্টার সাফায়েত সুলতানা রুমি ও নুরে আলম উজ্জ্বল।

সদস্য পদের জন্য লড়ছেন- মিন্টু কুমার মন্ডল, ব্যারিস্টার মুনতাসীর উদ্দিন আহমেদ, ব্যারিস্টার মো. সানোয়ার হোসেন, এবিএম শিবলী সালেকীন, মো. সিরাজুল হক, মহিউদ্দিন আহমেদ ও অ্যামাহফুজুর রহমান রোমান।

বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের (নীল প্যানেল) প্রার্থীরা হলেন- সভাপতি পদে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্য সচিব মো. ফজলুর রহমান, দুই সহ-সভাপতি পদে জয়নাল আবেদিন তুহিন ও জালাল আহমেদ, সম্পাদক মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল, কোষাধ্যক্ষ আব্দুল্লাহ আল মাহবুব, দুই সহ-সম্পাদক পদে মাহমুদ হাসান ও রাশিদা আলম।

এছাড়া নীল প্যানেলে সদস্য পদে প্রার্থীতা করছেন- মনজুরুল আলম সুজন, শফিকুল ইসলাম শফিক, গোলাম মোহাম্মদ জাকির, পারভীন কাওসার মুন্নি, রেদওয়ান আহমেদ রানজিব, নিয়াজ মুহাম্মদ মাহবুব ও ইফতেখার আহমেদ।

এদিকে, বিএনপি থেকে মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন কয়েকজন আইনজীবী। তারা হলেন- সভাপতি পদে ওয়ালিউর রহমান খান, সহ-সভাপতি নাহিদ সুলতানা ও সাবিনা ইয়াসমিন লিপি, সম্পাদক মির্জা আল মাহমুদ, কোষাধ্যক্ষ নাসির উদ্দিন খান সম্রাট, সহ-সম্পাদক জুলফিকার আলী জুনু ও মো. সুলতান মাহমুদ, সদস্য পদে শাফিউর রহমান শাফি, মো. মুনির হোসেন, একেএম মুক্তার হোসেন, মহিত উদ্দিন জুবায়ের, আকবর হোসেন, ওয়ালিউর রহমান শুভ ও নাজমুল হাসান।

নির্বাচনে লাল প্যানেল নামের আরও একটি প্যানেল প্রার্থী দিয়েছে। তারা হলেন- সভাপতি পদে কে এম জাবির, সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম, সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ মো. বদিউজ্জামান তপাদার, সহ-সম্পাদক মো. সাজ্জাদ হোসেন, সদস্য পদে শহিদুল হক, এস কে এম আনিসুর রহমান খান, জহিরুল আলম বাবর। এবারও স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনুছ আলী আকন্দ সভাপতি পদে লড়ছেন।