ক্রমেই অবনতি হতে থাকা করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসতে আনতে ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। সোমবার (২৯ মার্চ) আগামী দুই সপ্তাহের জন্য এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে

সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে,

. সবধরনের জনসমাগম অপ্রয়োজনীয় চলাফেরা নিষিদ্ধ করতে হবে

. মসজিদসহ সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন নিশ্চিত করতে হবে

. পর্যটন, বিনোদনকেন্দ্র, সিনেমাহল, থিয়েটারহলে জনসমাগম সীমিত করতে হবে

. গণপরিবহনের ধারণ ক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী নিতে হবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

. সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাতে আন্তঃজেলা যান চলাচল সীমিত করতে হবে, প্রয়োজনে বন্ধ করতে হবে

. বিদেশফেরতদের ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে

. নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী খোলা/উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেনাবেচা করতে হবে, ওষুধের দোকানে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হবে

. স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানসমূহে মাস্ক পরিধানসহ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

. শপিংমলে ক্রেতাবিক্রেতা উভয়েরই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

১০. সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে

১১. প্রয়োজন ছাড়া রাত ১০ টার পর বাইরে থাকা থেকে বিরত থাকতে হবে

১২. প্রয়োজনে ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

১৩. করোনা আক্রান্ত লক্ষণযুক্ত ব্যক্তির আইসোলেশন নিশ্চিত করতে হবে, আক্রান্ত ব্যক্তির কাছে আসা অন্যান্যদেরও কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে

১৪. জরুরি সেবা ছাড়া সব সরকারিবেসরকারি অফিস অর্ধেক জনবল দ্বারা পরিচালিত করতে হবে

১৫. সভা, সেমিনার, প্রশিক্ষণ কর্মশালা যথাসম্ভব অনলাইনে আয়োজনের ব্যবস্থা করতে হবে

১৬. সশরীরে উপস্থিত হতে হয় এমন যেকোনো গণপরীক্ষার ক্ষেত্রে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

১৭. হোটেল, রেস্তোরাঁসমূহে ধারণ ক্ষমতার অর্ধেক মানুষের প্রবেশ করতে পারবে

১৮. কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ এবং অবস্থানকালীন সর্বদা বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধানসহ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে