চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥

জেলার সকল ইমামদের সাথে ভার্চুয়াল সম্মেলন করেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসন। বুধবার সকাল ৯ টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষ হতে জেলার ইমামদের সাথে জেলা প্রশাসক ভার্চুয়ালি (জুম মিটিং) সম্মেলন করেন। জেলার সকল মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের আজান ও রোজার ইফতারির সময় নির্ধারণ এবং মাদক, বাল্যবিবাহ, নারী ও শিশু নির্যাতন, নারী ও শিশু পাচার, যৌতুকসহ সমাজের বিভিন্ন অবক্ষয় প্রতিরোধে জেলা ইমামদের নিয়ে এ সম্মেলনের আয়োজন করে জেলা প্রশাসন ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন। জেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক আবুল কালামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, নবাবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোহম্মদ নজরুল ইসলাম। আজান ও ইফতারির সময় এবং মাদক ও বাল্যবিয়ের উপর বিশেষ আলোচনা করেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ড. মোহাঃ এমরান আলী, নামোশংকরবাটি হেফজুল উলুম কামিল মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা মোঃ গিয়াস উদ্দিন, উপর নিমগাছী জেসামিয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসা জামে মসজিদের ইমাম ও মুহতামিম হাফেজ ক্বারী মাওলানা মোঃ মাহবুবুর রহমান, মুনসেফপুর ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও সেন্ট্রাল জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা মোঃ হুমায়ন কবিরসহ অন্যরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দেবেন্দ্রনাথ উরাঁও, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জাকিউল ইসলাম, সাবেক মেয়র মাওলানা আব্দুল মতিনসহ জেলা সদরের মাদ্রাসার অধ্যক্ষগণ ও ইমাম-মুয়াজ্জিনগণ।

প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুল হাফিজ বলেন, ইসলাম হল শান্তির ধর্ম। ঐক্যতা ইসলাম ধর্মের অন্যতম একটি আকিদা। তাই জেলায় আমরা সকলে এক হয়ে নির্ধারিত সময়ে সকল মসজিদে আজান হবে এবং একই সময়ে আমরা ইফতারি করবো। ইসলামের এ ঐক্যের মডেল আমরা আমাদের জেলা থেকে প্রথম শুরু করতে চাই। আশাকরি আমরা কামিয়াবি হবো এবং ইহকাল ও পরকালের জন্য ভাল কিছু করছি বলে নিজেকে গর্বিত মনে করবো। করোনা মোকাবিলায় জেলায় ইমামদের ভুমিকার ভুয়সী প্রশংসা করেন প্রধান অতিথি মঞ্জুরুল হাফিজ। সেই সাথে তিনি সকলকে মাস্ক পরিধান করতে, সতর্কতার সহিত চলাফেরা এবং সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে আহবান জানান।

জেলার ৪৫টি ইউনিয়ন ও ৪টি পৌরসভার ডিজিটাল সেন্টার হতে পৌর মেয়রগণ, ইউনিয়ন চেয়ারম্যানগণ, ইমাম ও মুয়াজ্জিনগণসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ জুম মিটিং এর মাধ্যমে ভার্চুয়াল সম্মেলনে যোগদান করেন। সম্মেলনে আজান ও ইফতারি জেলায় একই সময়ে অনুষ্ঠিত হবার বিষয়ে সকলে একমত পোষন করেন এবং তা কার্যকর করবেন বলে আশ্বস্থ করেন। শেষে দেশ ও জাতির কল্যান কামনা করে মোনাজাত করেন, কোর্ট জামে মসজিদের খতিব মাওলানা হোসাইন আহমদ।