গত ১ এপ্রিল পশ্চিমবঙ্গের নন্দীগ্রামে বিধানসভার নির্বাচন চলাকালীন ভোট কারচুপির অভিযোগপত্রে ‘তথ্যগতভাবে ভুল’ ও ‘ভিত্তিহীন’ অভিযোগ জানানোর কারণে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছে ভারতের নির্বাচন কমিশন। গতকাল রবিবার (৪ এপ্রিল) এক চিঠিতে তারা এ কথা জানায়। খবর প্রকাশ করেছে এনডিটিভি।
উল্লেখ্য, গত ১ এপ্রিল নন্দীগ্রামে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু সেখানে ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি পাঠান রাজ্য মুখ্যমন্ত্রী। সেই অভিযোগের তদন্ত সাপেক্ষে এমন বিবৃতি দিলো কমিশন।
কমিশনের চিঠিতে বলা হয়েছে, একজন প্রার্থী ও মুখ্যমন্ত্রী হওয়া সত্ত্বেও তিনি মিথ্যা তথ্য দিয়ে ভোটারদের ভুলভাবে পরিচালিত করছেন। যা বড় ধরনের নিয়ম বহির্ভুত কাজ। তার এমন কর্মকাণ্ড অন্য রাজ্যগুলোতেও শান্তি-শৃঙ্খলা বিনষ্ট করতে পারে।
পরে এক সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশন জানায়, মুখ্যমন্ত্রীর এ কর্মকাণ্ড আদর্শ আচরণবিধি এবং জন প্রতিনিধি আইনের লঙ্ঘন। তাই এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে, বিষয়টি নিয়ে কমিশনের বিরুদ্ধে উল্টো অভিযোগ করেছেন তৃণমূলের নেতৃবৃন্দ। তারা বলছেন, নির্বাচন কমিশন পক্ষপাতিত্ব (বিজেপির পক্ষে) করছে। একইসঙ্গে তাদের অভিযোগও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
নন্দীগ্রামের ভোট প্রসঙ্গে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অভিযোগ ছিল, আসনটিতে ভোটের দিন চূড়ান্ত অসভ্যতা হয়েছে। বিজেপি প্রার্থীর নেতৃত্বে দুষ্কৃতিকারীরা টহল দিয়েছে। এমন প্রায় ৬৩টা অভিযোগ জানানো হয়েছে। সূত্র : এনডিটিভি