ফিফটি করে দারুণ কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। কিন্তু আউট হয়েছেন মাত্র ২ রান যোগ করে। ক্রিজে এসে প্যাডল সুইপ করতে গিয়ে মোহাম্মদ মিথুন ফেরেন প্রথম বলেই। খাদের কিনারা থেকে দলকে টেনে তোলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে সঙ্গে নিয়ে ক্রিজে থাকা মুশফিকুর রহিম। দুজনের অবিচ্ছেদ্য জুটি থেকে এখন পর্যন্ত আসে ৫৫ বলে ৪৩ রান। মুশফিক ৫২ বলে তুলে নেন ক্যারিয়ারের ৪০তম হাফসেঞ্চুরি।ফিফটির পর আউট তামিম, শূন্যতেই শেষ মিঠুন

মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে জমে গিয়েছিল জুটি। আগের ওভারে ফিফটি পেয়েছিলেন তামিম, জুটি ছুঁয়েছিল পঞ্চাশ। বাড়তে শুরু করেছিল রানের গতি। এমন সময়ে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরে গেলেন তামিম। পরের বলে প্যাডল সুইপের চেষ্টায় এলবিডব্লিউ হলেন মোহাম্মদ মিঠুন।

পরপর দুই বলে দুটি উইকেট হারাল বাংলাদেশ। একই সঙ্গে হারাল দুটি রিভিউ।

ধনাঞ্জয়ার বলের লাইন বুঝতে পারেননি তামিম। ইয়র্কার লেংথের বল তার ব্যাটের কানা ফাঁকি দিয়ে আঘাত হানে পায়ের নিচের দিকে। রিভিউ নিয়েও কাজ হয়নি, ৭০ বলে ছয় চার ও এক ছক্কায় ৫২ রান করে ফিরে যান বাংলাদেশ অধিনায়ক।

ক্রিজে গিয়েই অফ স্পিনারের বলে প্যাডল সুইপ করেন মিঠুন। কোনো দরকার ছিল না এমন শটের। আম্পায়ার আউট দেওয়ার পর রিভিউ নেন তিনিও কিন্তু পাল্টায়নি সিদ্ধান্ত। গোল্ডেন ডাকের স্বাদ পাওয়া মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ফিরেন শেষ রিভিউটাও নষ্ট করে।

২৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১২০। ক্রিজে মুশফিকুর রহিমের (৩৬) সঙ্গী মাহমুদউল্লাহ (১২)। অনেকবার দলকে রক্ষা করা দুই ব্যাটসম্যানের কাঁধে আবারও বাংলাদেশকে টেনে তোলার দায়িত্ব।

হাঁসফাঁস করে শেষ সাকিব

উইকেটে বেশ কিছুক্ষণ কাটিয়েও ছন্দ পাচ্ছিলেন না সাকিব আল হাসান। ধুঁকছিলেন রান বের করতে। শেষ পর্যন্ত ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে শট খেলে তিনি বিলিয়ে এলেন উইকেট।

ত্রয়োদশ ওভারের সেটি প্রথম বল। দানুশকা গুনাথিলাকার ফ্লাইটেড বলটিতে বেরিয়ে এসে বোলারের মাথার ওপর দিয়ে খেলতে চেয়েছিলেন সাকিব। কিন্তু বলের কাছে যেতে পারেননি। ব্যাটের কানায় লেগে বল যায় লং অনে পাথুম নিসানকার হাতে।

সাকিবের অস্বস্তিময় ইনিংস শেষ ৩৪ বলে ১৫ রান করে। থামল তামিম ইকবালের সঙ্গে তার ৬৪ বলে ৩৮ রানের জুটি। ১৫ ওভার শেষে বাংলাদেশ ২ উইকেটে ৫৪। তামিম খেলছেন ২৮ রান নিয়ে। তাকে সঙ্গ দিতে ক্রিজে আসা মুশফিকের ঝুলিতে ৭ রান।

এর আগে প্রথম পাওয়ার প্লেতে ১০ ওভারে লিটন দাসকে হারিয়ে ৪০ রান করে বাংলাদেশ।

শূন্যের সপ্তমে লিটন

ধারাবাহিক ব্যর্থতার পরও তার উপর আস্থা রেখেছিলেন টিম ম্যানেজম্যান্ট। তবে সেই আস্থার প্রতিদান এবারও দিতে পারলেন না লিটন দাস। আগের ৬ ওয়ানডেতে ব্যর্থ এই ওপেনার এবার ফিরলেন শূন্য রানে। ৪৩ ইনিংসে ডানহাতি এই ব্যাটসম্যানের এটি সপ্তম শূন্য, সবশেষ সাত ইনিংসে তৃতীয়।

দ্বিতীয় ওভারে বোলিংয়ে এসে শ্রীলঙ্কাকে প্রথম সাফল্য এনে দেন দুশমন্থ চামিরা। বলটা এমন আহামরি কিছু ছিল না। অফ স্টাম্পের বাইরে ফুল লেংথ বল, স্লটেই পেয়েছিলেন লিটন। কিন্তু একটু আউট সুইং করা বলে ঠিক মতো শট খেলতে পারেননি তিনি। প্রথম স্লিপে চমৎকার ক্যাচ মুঠোয় নেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা।

সেই ওভারের শেষ বলে বাউন্ডারি মেরে রানের খাতা খোলেন তিনে ফেরা সাকিব আল হাসান। আগের ওভারের শেষ বলে বাউন্ডারিতে রানের দেখা পান তামিম ইকবালও।

দুজনের জুটি জমে উঠেছে। ৮ ওভার শেষে ঐ এক উইকেট হারানো বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৭। তামিম থেলছেন ১২ রানে, পছন্দের তিনে ফেরা সাকিবের ঝুলিতেও সমান রান।

আফিফকে নিয়ে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

শ্রীলঙ্কা দলে করোনাভাইরাসের হানায় সকালে ম্যাচ নিয়ে অনিশ্চয়তা ছিল। তবে তা কাটিয়ে শুরু হচ্ছে খেলা। লঙ্কানদের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে টস আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ।

মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের প্রথম ওয়ানডের একাদশে বাংলাদেশ রেখেছে তিন পেসার। তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে আছেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। সাত নম্বরে খেলানোর ভাবনায় একাদশে রাখা হয়েছে আফিফ হোসেনকে।

মেহেদী হাসান মিরাজের সঙ্গে সাকিব আল হাসান ফেরায় স্পিন শক্তিতেও পরিপূর্ণ তামিম ইকবালের দল।

বাংলাদেশ একাদশ : তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান।

নেই ডিকভেলা-দনাঞ্জয়া

শ্রীলঙ্কা তাদের একাদশে রেখেছে দুই পেসার। গতিময় দুশমন্ত চামিরার সঙ্গে আছেন বাঁহাতি ইশুরু উদানা। উদানার খেলা নিয়ে অবশ্য সকালে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছিল। খেলার আগে কোভিড-১৯ পরীক্ষায় উদানাসহ শ্রীলঙ্কার তিনজনের করোনা পজিটিভ খবর পাওয়া যায়। আরেক দফা পরীক্ষায় নেগেটিভ আসে উদানা ও পেস বোলিং কোচ চামিন্দা ভাসের।

তবে ফের পজিটিভ আসায় পেসার শিরান ফার্নান্দোকে রাখা হয়েছে আইসোলেশনে। একজন খেলোয়ায় কোভিড-১৯ পজিটিভ থাকলেও আইসিসির গাইডলাইন অনুযায়ী খেলা চালিয়ে যেতে কোন বাধা নেই।

প্রস্তুতি ম্যাচে দারুণ ব্যাটিংয়ের পরও প্রথম ওয়ানডেতে দলে জায়গা হয়নি কিপার-ব্যাটসম্যান নিরোশান ডিকভেলার। অধিনায়ক ও ওপেনার কুসল পেরেরাই দাঁড়াবেন উইকেটের পেছনে। এই ম্যাচ দিয়ে নেতৃত্বের অভিষেক হচ্ছে বিস্ফোরক এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের।

বাংলাদেশের বিপক্ষে রেকর্ড বেশ ভালো আকিলা দনাঞ্জয়ার। একাদশে জায়গা হয়নি তারও। দলের মূল দুই স্পিনার ভানিন্দু হাসারাঙ্গা ও লাকশান সান্দাক্যান। দুই জনই রিস্ট স্পিনার।

শ্রীলঙ্কা একাদশ : কুসল পেরেরা, দানুশকা গুনাথিলেকা, পাথুম নিশানকা, কুসল মেন্ডিস, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, দাসুন শানাকা, আসেন বান্দারা ওয়েইন্দু হাসারাঙ্গা, ইশুরু উদানা, লাকসান সান্দাকান, দুশমন্ত চামিরা।

সুপার লিগের পয়েন্টের লড়াই

বছরের শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশড করে আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগে শুভ সূচনা করে বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ড সফরে হয় উল্টো অভিজ্ঞতা। ৩০ পয়েন্ট নিয়ে ছয় নম্বরে রয়েছে দলটি। সিরিজে দুটি জয় দলকে নিয়ে যাবে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে।

সুপার লিগে এখনও কোনো পয়েন্ট পায়নি শ্রীলঙ্কা। উল্টো মন্থর ওভার রেটের জন্য হারিয়েছে দুই পয়েন্ট।

২০২৩ বিশ্বকাপকে সামনে রেখে দলের চেহারা আমূল পাল্টে ফেলেছে ১৯৯৬ আসরের চ্যাম্পিয়নরা। কুসল পেরেরা ও কুসল মেন্ডিসের নেতৃত্বে তারুণ্য নির্ভর একটি দল নিয়ে বাংলাদেশে এসেছে তারা।