মোঃ নাদিম হোসেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ ঃ
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় নিরাপদে সুমিষ্ট আম পৌঁছে দিবে ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেন। ঘরে বসেই কম খরচে আম খেতে পারবে সকলেই। একদিকে যেমন আম পরিবহন নিরাপদ হবে, তেমনি অন্যদিকে লাভবান হবেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-রাজশাহী অঞ্চলের আমচাষী, ব্যবসায়ী রফতানিকারকরা। আম ছাড়াও অল্প খরচে বিভিন্ন কৃষি পন্য পরিবহনে গতবছর থেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেন।
বৃহস্পতিবার (২৭ মে) দুপুরে গণভবন হতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে রাজধানী ঢাকাগামী ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বাংলাদেশের রেল যোগাযোগসহ বিভিন্ন অবকাঠামো ধ্বংস করে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দেশকে ধ্বংসস্তুপ থেকে উদ্ধারে নানা পরিকল্পনা হাতে নেয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। অল্প সময়ের মধ্যেই দেশের রেল যোগাযোগসহ বিভিন্ন খাতের মেরামত করতে সক্ষম হয় জাতির পিতা। কিন্তু আমরা বীরের জাতি হিসেবে যে সুনাম, তা সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যার মধ্য দিয়ে ধ্বংস করে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও বলেন, বিএনপি সরকার ক্ষমতায় এসে দেশের বহু রেললাইন ও স্টেশন বন্ধ করে দিয়েছিল। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করতে বন্ধ হওয়া রেললাইন ও স্টেশনগুলো আবারো চালু করেছে। রেলপথের পাশাপাশি সড়কপথ, নৌপথ ও আকাশপথের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে নানারকম উন্নয়নে কাজ শুরু করে বর্তমান সরকার। এমনকি আওয়ামীলীগ সরকার বঙ্গবন্ধু সেতুর উপর দিয়ে রেললাইন স্থাপন করে। এছাড়াও বর্তমান সেতুর পাশ দিয়ে আরেকটি শুধুমাত্র রেলপথের জন্য পৃথক রেলব্রীজ স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে।
ঢাকা-চট্রগ্রাম রুমে হাই স্পিড ট্রেনের পরিকল্পনা করছে সরকার উল্লেখ করে, আওয়ামীলীগ সভানেত্রী বলেন, নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী ঢাকা-মংলা রেললাইনের কাজ চলমান রয়েছে। পদ্মাসেতুতেও রেলের জন্য পৃথক লাইন রাখা হয়েছে। সম্পূর্ণ বরিশাল রেললাইনের আওতায় নিয়ে আসার পরিকল্পনা রয়েছে ও চট্রগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত রেললাইনের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে।

ভারতের সাথে সীমান্তে বন্ধ সকল রেললাইন চালু ও সংস্কার কাজ করা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, সম্পূর্ণ বাংলাদেশ রেলে সংযোগের আওতায় আসবে। দেশের ৯৯  ভাগ জনগোষ্ঠী এখন বিদ্যুতের আওতায় রয়েছে। যেমনভাবে দেশের বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়ন করা হয়েছে। তেমনভাবে রেলের উন্নয়নে কাজ করছে সরকার।
অনুষ্ঠানে রাজশাহী রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (পশ্চিম) মিহির কান্তি গুহ জানন, ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেনের মাধ্যমে আম পাঠালে খরচ খুবই কম। বাসে প্রতি মনে খরচ লাগে ১৪০০ টাকা। কুরিয়ার সার্ভিসে খরচ পড়ে ২০০০ টাকা। আর এ মাংগ্যো ট্রেনে খরচ পড়বে মাত্র ১১৮০টাকা।। এতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-রাজশাহী অঞ্চলের আমচাষীদের একদিকে যেমন খরচ কমবে তেমনি লাভবান হতে পারবে।
জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনার শনাক্তের হার উর্ধ্বগতি। এ ট্রেনের মাধ্যমে আম চাষিরা খুব কম খরচে ও স্বাস্হ্যবিধি মেনে ঢাকায় আম পাঠাতে পারবে। এতে ঘরে বসেই কম খরচে ঝামেলাবিহীনভাবে আম পাবে রাজধানীবাসী।
এসময় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশন প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ডা. শামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি ফেরদৌসী ইসলাম জেসী, বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক মিহির কান্তি গুহ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও  জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মঈনুদ্দিন মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি আব্দুল ওদুদ, জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ, পুলিশ সুপার এএইচএম আব্দুর রকিব, সিভিল সার্জন ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী, বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) শাহাদাত হোসেন, সাবেক এমপি জিয়াউর রহমানসহ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা ও জেলায় কর্মরত বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।
উল্লেখ্য, ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেনটি দুপুর ২ টায় রহনপুর থেকে আম বোঝায় করে ছেড়ে আসবে চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলষ্টেশন। পরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশন  থেকে বিকেল সাড়ে ৪ টায় আম বোঝায় ঢাকার উদ্দেশ্য ছেড়ে যাবে ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেন।  প্রতিদিন ২১৫ মেট্রিক ট্রেন আম নিয়ে ঢাকায় যাবে এ ট্রেনটি। রহনপুর থেকে ঢাকা আম পৌঁছাতে প্রতি কেজি আমের বহনমূল্য লাগবে মাত্র ১ টাকা ৩০ পয়সা।