মোঃ নাদিম হোসেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ:
করোনা সংক্রমন বৃদ্ধি প্রতিরোধে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় কঠোর লকডাউনের আজ ১২ম দিন এবং ২য় দফায় ৭দিন লকডাউন এর ৫ম দিন শনিবার। গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৯৪টি, করোনা আক্রান্ত রোগীর সনাক্ত ১০৭জন। যা শতকরা প্রায় ৫৫%। ২য় দফা লকডাউন চলাকালেও করোনা সংক্রমন উর্ধ্বমূখী। জেলায় করোনায় মোট মৃত্যু ৫৪জন। ১ম দফা লকডাউনে জেলায় করোনা সংক্রমনের হার শতকরা ৩৪% এ নেমে এসেছিলো। বৃহস্পতিবার (৩জুন) সংক্রমনের হার ছিলো প্রায় ৪৩%। শুক্রবার (৪জুন) সংক্রমনের হার ছিলো প্রায় ৪২% এবং শনিবার (৫জুন) সংক্রমনের হার প্রায় ৫৫%। কঠোর লাকডাউন চলাকালে সংক্রমনের হার উর্ধ্বমূখী হওয়ায় আতংকিত সচেতন মহল।
এদিকে, ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ‘ডেলটা’ ভাইরাসে চাঁপাইনবাবগঞ্জের রোগী সনাক্ত হওয়ায় উদ্বেগ স্বাস্থ্য বিভাগের।
প্রথম দফা লকডাউনে মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলায় জেলায় সংক্রমনের হার নিম্নমুখীই ছিলো। জেলায় কঠোরভাবে পালিত হচ্ছে লকডাউন। তবে মফস্বলে মানুষ সঠিকভাবে মানছেনা লকডাউন বা সরকারী নির্দেশনা। মফস্বলে কঠোরভাবে লকডাউন কার্যকরে মাঠে তৎপর রয়েছে জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশের বিভিন্নস্তরের কর্মকর্তা ও সদস্যরা। লকাডাউন কার্যকরে মাঠে রয়েছে জনপ্রতিনিধি ও গ্রামপুলিশও। জেলা শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে এবং জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রশাসনের তৎপরতা দেখা গেছে। লকডাউনে দূরপাল্লার ও আন্তঃজেলা বাস ও ট্রেনসহ যানবাহন বন্ধ রয়েছে। মার্কেট ও দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থলবন্দর সোনামসজিদ স্থলবন্দরে কার্যক্রম স্বাভাবিক গতিতেই চলছে। আম বাজারকরণ ও রপ্তানী কার্যক্রম লকডাউনের আওতামুক্ত রেখে যথাসম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মেনেই চলছে।

সিভিল সার্জন ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী শনিবার সকালে জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় বর্তমানে করোনা রোগী চিকিৎসাধিন রয়েছে ১১৮১ জন। জেলায় এ পর্যন্ত মোট ২৩৪৭ জনের দেহে ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। জেলায় করোনায় মারা গেছে মোট ৫৪জন। গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৯৪টি, করোনা আক্রান্ত রোগী সনাক্ত ১০৭জন। যা শতকরা প্রায় ৫৫%। ২য় দফা লকডাউন চলাকালেও করোনা সংক্রমন কিছুটা উর্ধ্বমূখী। ভারত থেকে সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে দেশে প্রবেশ করেছে মোট ৯৪জন। এর মধ্যে ২৪জনকে কোয়ারেন্টাইন থেকে অবমুক্ত করা হয়েছে। জেলায় সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ১২৯জন রোগী। সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য জোরালোভাবে অনুরোধ জানান সিভিল সার্জন।

উল্লেখ্য, জেলা প্রশাসক ও জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মো. মঞ্জুরুল হাফিজ গত ৩১মে দুপুরে এক প্রেসব্রিফিং এ আরও ৭দিন, ৩১ মে দিবাগত রাত ১২টা থেকে ৭ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত ২য় দফা  লকডাউন বৃদ্ধির ঘোষণা দেন।