সংবাদ সংযোগ ডেস্ক : দিন দিন ভারতীয়দের জন্য নরকে পরিণতি হচ্ছে আফগানিস্তান। সেই পরিপ্রেক্ষিতেই ভারতীয় সরকার তাদের নাগরিকদের সে দেশ ত্যাগের নির্দেশ দিয়েছে। হাজার হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করে আফগানিস্তানে জেঁকে বসার যে চিন্তা ছিলো তাদের। সেখানে থেকে সরে এসেছে তারা। অনেক ভারতীয় নাগরিক আফগানিস্তান থেকে ইতোমধ্যে পালিয়ে গেছে বলে জানা যায় ।
দিনে দিনে ক্রমেই খারাপ হচ্ছে আফগানিস্তানের অবস্থা। আরও বাড়ছে তালিবানদের অগ্রযাত্রা। এমতাবস্থায় কমবেশি বহু দেশই সেদেশে থাকা নিজ নাগরিকদের ফেরত পাঠাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাঠানো হচ্ছে বিশেষ বিমান। এবার সেই রাস্তাতেই হাঁটতে দেখা গেল ভারতকেও। এদিকে এর আগেই সেদেশে থাকা একাধিক দূতাবাস থেকে বহু আধিকারিকদের ফিরিয়েছে ভারত। এবার মঙ্গলবারও সেই কাজ করছে নয়া দিল্লি।
আফগানিস্তানের চতুর্থ বৃহত্তম শহর মাজার-এ-শরিফে থাকা ভারতীয়দের মঙ্গলবারের মধ্যেই সে দেশ ছেড়ে ভারতে চলে আসার নির্দেশ দেয় দিল্লি। এদিকে তথ্য বলছে, এই মুহূর্তে আফগানিস্তানে মোট দেড় হাজার ভারতীয় রয়েছেন। তবে মাজার-এ-শরিফ ও পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে ঠিক কতজন রয়েছেন সে ব্যাপারে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। এদিকে গত মাসেই কান্দাহার শহর থেকে ৫০ জন নাগরিককে এ দেশে ফিরিয়ে এনেছে ভারত।
মাজার-ই-শরিফ থেকে বিশেষ বিমানে দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা হতে অনুরোধ করা হয়েছে সেদেশে থাকা ভারতীয়দের। তারমধ্যে বেশিরভাগই কূটনৈতিক রয়েছে বলে খবর। এদিকে এর আগেও বেশ কয়েক দফায় জরুরি ভিত্তিতে ভারতীয় কূটনীতিকদের দেশে ফেরানো হয়েছে। এবার ফের সেই কাজ শুরু হচ্ছে বলেও জানা যাচ্ছে। মূলত তালিবান হামলার আবহেই আফগানিস্তান থেকে বিশেষ বিমানে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে ভারতীয় কূটনীতিকদের।আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করেই ভারত সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।
মাজার-ই-শরিফের কনস্যুলেট জেনারেল অব ইন্ডিয়া এক টুইট বার্তায় লিখেছে, মাজার-ই-শরিফ থেকে একটি বিশেষ ফ্লাইট দিল্লির উদ্দেশে রওনা দেবে। মাজার-ই-শরিফ এবং এর বাইরে অবস্থানরত ভারতীয় নাগরিকদের আফগানিস্তান থেকে দেশে ফেরার আহ্বান জানানো হচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিশেষ ফ্লাইটে দেশে ফিরতে পারেন ভারতীয় নাগরিকরা।