স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের আগে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ রাখা হয়েছিল সফরকারীদের জন্য। তবে জৈব সুরক্ষা বলয়ের সমস্যা এড়াতে সেটি আর হচ্ছে না। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের সবগুলো ম্যাচ সন্ধ্যা ৬টায় শুরু হলেও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তা হচ্ছে না। এই সিরিজে এগিয়ে আনা হচ্ছে ম্যাচ শুরুর সময়। গতকাল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজামউদ্দিন চৌধুরী গণমাধ্যমে দিয়েছেন এসব তথ্য।
টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে ২৪ আগস্ট বাংলাদেশে আসবে নিউজিল্যান্ড দল। তিন দিনের কোয়ারেন্টিনের পর ২৯ আগস্ট বিকেএসপিতে তাদের জন্য বরাদ্দ ছিল একটি প্রস্তুতি ম্যাচ। আপাতত সেই ম্যাচটি বাদ দেওয়া হয়েছে বলে জানান নিজামউদ্দিন, ‘তাদেরকে অফার করা হয়েছিল (প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার)। তবে যেহেতু অতিরিক্ত বায়ো বাবল নিশ্চিত করার ব্যাপার ছিল। আরেকটা ভেন্যুতে খেলতে হলে সেখানেও বায়ো বাবল পরিবেশ তৈরি করতে হবে। এই বিষয়গুলো তারা একটু আলোচনা করছে। যত কম মুভমেন্টে সিরিজ শেষ করতে পারি সেটাই নিয়েই আলোচনা হয়েছে।’
নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে বাংলাদেশের সময়ের পার্থক্য মাথায় নিয়ে খেলা শুরুর সময়েও আসছে বদল। সন্ধ্যা ৬টার বদলে বিকেল ৪টায় ম্যাচ শুরু পরিকল্পনা করছে বিসিবি, ‘এখন পর্যন্ত যে পরিকল্পনা আছে, যেহেতু নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে আমাদের একটা সময়ের তফাৎ আছে। নিউজিল্যান্ডের ভিউয়ারশিপের একটা বিষয় আছে। সব কিছু বিবেচনা করে আমরা টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে আলাপ করেছি। আমরা সম্ভবত ৪টার দিকে খেলা শুরুর পরিকল্পনা করছি।’
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের সিরিজ শেষ হওয়ার পরদিন থেকেই মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে নিয়মিত মুখ মুশফিকুর রহিম। সিরিজটি খেলতে না পারা অভিজ্ঞ ক্রিকেটার নেটে ঘাম ঝরিয়ে যাচ্ছেন নিয়মিত। গতকাল থেকে এই তালিকায় যুক্ত হয়েছেন পারিবারিক কারণে সিরিজটি না খেলা লিটন কুমার দাসও। তাদের সঙ্গে হোম অব ক্রিকেটে ঘাম ঝরাচ্ছেন সৌম্য সরকার, শামীম হোসেন, ইবাদত হোসেনরাও। টানা জৈব-সুরক্ষা বলয়ে থাকার মানসিক ধকল এড়াতে জাতীয় ক্রিকেটারদের অনেকেই এই সময়টায় ছুটি কাটাচ্ছেন ঢাকার বাইরে। তবে আরেকটি সিরিজ যেহেতু খুব কাছেই, ক্রিকেটারদের তাই বাঁধনহারা হতে দিচ্ছে না বিসিবি।
যারা মাঠে আসছেন কিংবা যারা মাঠ থেকে দূরে, সবাই জন্যই বিসিবির পরামর্শ, কোভিডের ঝুঁকি এড়াতে চলতে হবে জনসমাগম এড়িয়ে। তার আগে ক্রিকেটারদের সতর্ক থাকার বার্তা দেওয়া হয়েছে বলে জানালেন প্রধান নির্বাহী, ‘আমাদের ক্রিকেটারদের ব্যাপারে আমাদের মেডিকেল ডিপার্টমেন্ট ও ক্রিকেট অপারেশন্স ডিপার্টমেন্ট কাজ করছে। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট অন্য বিভাগগুলিও কাজ করছে। বায়ো-বাবল তৈরি হলেই ক্রিকেটাররা সেখানে ঢুকবেন এবং ইতিমধ্যেই তাদেরকে বলে দেওয়া হয়েছে কী করা যাবে, কী যাবে না।’ বিসিবির বিশ্বস্ত এক সূত্র জানিয়েছে, অস্ট্রেলিয়াকে দেওয়া একই কোভিড প্রোটোকল চাইছে নিউজিল্যান্ড দলও। বিসিবিও তাদের সেই একই সুবিধা দেবার চেষ্টা করছে। তাই এই বাড়তি সতর্কতা।
মন্থর ও টার্নিং উইকেট বানিয়ে চলতি মাসে অস্ট্রেলিয়াকে ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ হারায় বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও পাল্লা ভারি বাংলাদেশেরই। নিউজিল্যান্ড তাদের বিশ্বকাপ স্কোয়াডের একজন সদস্যকেও বাংলাদেশ সফরে পাঠাচ্ছে। টম ল্যাথামের নেতৃত্বে খেলতে আসছে দ্বিতীয় সারির ক্রিকেটাররা। আগামী ২৪ আগস্ট ঢাকায় আসার কথা নিউজিল্যান্ড দলের। একই দিনে টিম হোটেলে সুরক্ষা-বলয়ে ঢুকবে বাংলাদেশ দলও।