ভূঞাপুর উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচন
আঃ রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ
টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে নৌকার মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগের ১০ নেতা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন।
ইতোমধ্যে আগ্রহী প্রার্থীদের পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে উপজেলা পরিষদের আশপাশের এলাকা। উঠান বৈঠক ও সামাজিক নানা অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তারা গণসংযোগ চালাচ্ছেন। একই সাথে সম্ভাব্য প্রার্থীরা কেন্দ্র ও জেলার নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন।
নৌকার টিকিট পেতে যারা মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন- ভূঞাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম তালুকদার বিদ্যুৎ, উপজেলা পরিষদের সদ্য প্রয়াত চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম অ্যাডভোকেটের সহধর্মিনী উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও লোকমান ফকির মহিলা ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক নার্গিস আক্তার, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাহিনুল ইসলাম তরফদার বাদল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম তালুকদার মোহন, জেলা পরিষদের সদস্য আজহারুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক তাহেরুল ইসলাম তোতা, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মিনহাজ উদ্দিন, নিকরাইল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোতালেব সরকার, উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহিদ শামস হুমায়ুন ও বিদ্যুত শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ।
এছাড়া বিএনপি দলীয়ভাবে মনোনয়ন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়নি। তারপরও গোবিন্দাসী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা মোস্তাফিজুর রহমান তালুকদার বাবলু গণসংযোগ শুরু করেছেন। দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করার পাশাপাশি দলীয় হাই কমান্ডের নির্দেশনার অপেক্ষায় রয়েছেন।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আলাউদ্দিন সরকার তুলাও গণসংযোগ করছেন।
উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম তালুকদার বিদ্যুৎ জানান, তিনি ইবরাহীম খাঁ সরকারি কলেজের দুইবারের ভিপি এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ভূঞাপুর পৌরসভার প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান (মেয়র) ছিলেন। রাজনীতির পেছনেই তিনি জীবনের অধিকাংশ সময় ব্যয় করেছেন। সবসময় জনগনের পাশে থেকেছেন। একজন ত্যাগী ও পরীক্ষিত কর্মী হিসেবে দল তাকে মনোনয়ন দিবে- এটাই তার আত্মবিশ্বাস।
আ’লীগের অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী মোছাঃ নার্গিস বেগম জানান, তার স্বামী আব্দুল হালিম অ্যাডভোকেট টানা দুইবার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি আওয়ামীলীগের নিবেদিত কর্মী ছিলেন। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত জনগণের পাশে থেকে সেবা করে গেছেন। তিনি নিজেও আওয়ামীলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। দল তাকে নৌকা প্রতীক দিলে নির্বাচিত হয়ে স্বামীর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করবেন। এলাকার সূত্রে জানাযায়, ১০ জন প্রার্থীর মাঝে বেশির ভাগ জন সমর্থনে এগিয়ে রয়েছেন মোছাঃ নার্গিস বেগম।
উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সাহিনুল ইসলাম তরফদার বাদল জানান, ছাত্র জীবন থেকে তিনি দলীয় আন্দোলন-সংগ্রামে রাজপথে থেকেছেন। বিএনপি-জামায়াতের নির্মম নির্যাতন ও পুলিশের লাঠিপেটা সহ্য করেছেন। ভাইস চেয়ারম্যান থাকাকালে জনগনের পাশে থেকেছেন। আ’লীগ তাকে মূল্যায়ন করবে বলে তিনি বিশ্বাস করেন।
বিএনপির সমর্থিত প্রত্যাশী ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান তালুকদার বাবলু জানান, তিনি বিএনপির কাছে দলীয় মনোনয়ন চাইবেন। দল তাকে মূল্যায়ন না করলে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহন করবেন।
এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী আলাউদ্দিন সরকার তুলা ইতোমধ্যে আটঘাট বেঁধে মাঠে নেমেছেন। তিনি দিনরাত ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে দোয়া ও ভোট প্রার্থনা করছেন।
টাঙ্গাইলের সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা এএইচএম কামরুল হাসান জানান, ভূঞাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন উত্তোলন ও দাখিলের শেষ তারিখ ৯ অক্টোবর।
মনোনয়ন যাচাই-বাছাই ১১ অক্টোবর ও প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৭ অক্টোবর। ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হবে আগামি ২ নভেম্বর ২০২১।
তিনি আরও জানান, উপ-নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে নির্বাচন কমিশন ইতোমধ্যে নানা পদক্ষেপ গ্রহন করেছে।
প্রসঙ্গত, ভূঞাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়াম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হালিম অ্যাডভোকেট করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ৩০ জুলাই মৃত্যুবরণ করায় ইসি চেয়াম্যান পদটি শূণ্য ঘোষণা করে।