• বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৫৯ অপরাহ্ন

ভারত-মিয়ানমার-শ্রীলংকায় মানবাধিকারের সমালোচনা পরিস্থিতির গুরুতর অবনতি সত্তে¡ও উদাসীন থাকার অভিযোগ জাতিসংঘের

আল ইসলাম কায়েদ
আপডেটঃ : বৃহস্পতিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

মানবাধিকার পরিস্থিতির গুরুতর অবনতি সত্তে¡ও উদাসীন থাকায় দক্ষিণ এশিয়ার তিনটি দেশ ভারত, মিয়ানমার ও শ্রীলংকার কড়া সমালোচনা করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশিনার প্রিন্স জেইদ রাদ বিন হুসেইন। জেনেভায় জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের ৩৬তম অধিবেশনের উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি এই সমালোচনা করেন। অবৈধ অভিবাসী অজুহাতে ৪০,০০০ রোহিঙ্গাকে বহিষ্কারের ব্যাপারে ভারতীয় সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা জানান প্রিন্স জেইদ। জেইদ বলেন, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নিজ দেশে যখন সহিংসতা চালানো হচ্ছে তখন ভারত থেকে তাদেরকে বহিষ্কার করতে দিল্লি যে ব্যবস্থা নিয়েছে আমি তার তীব্র নিন্দা করছি। ভারতে ৪০ হাজারের মতো রোহিঙ্গা রয়েছে। এদের মধ্যে ১৬ হাজারের কাছে শরণার্থী সংক্রান্ত কাগজ রয়েছে। ভারতের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেছেন যে তার দেশ শরণার্থী বিষয়ক আন্তর্জাতিক কনভেনশনে সই করেনি। তাই এ ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক আইন তাদের ওপর প্রযোজ্য নয়। কিন্তু দেশটি ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন অন সিভিল এন্ড পলিটিক্যাল রাইটস অনুমোদন করেছে। তাই তারা সঠিক প্রক্রিয়া অনুসরণ ছাড়া জোর করে শরণার্থীদের দেশে ফেরত পাঠাতে পারে না। মিয়ানমার প্রসঙ্গে তিনি বলেন সীমান্তে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের ল্যান্ডমাইন বসানোর খবরে আমি আতংকিত। আরো শংকা বোধ করছি এ কথা শুনে যে সহিংসতা থেকে যারা পালিয়ে গেছে তারা যদি জাতীয়তার প্রমাণ দিতে পারে তখনই শুধু তাদেরকে দেশে ফিরতে দেয়া হবে। ১৯৬২ সাল থেকে মিয়ানমারে একের পর এক সরকার রোহিঙ্গাদের রাজনৈতিক ও নাগরিক অধিকার খর্ব করেছে। তাদের নাগরিকত্বও বাতিল করা হয়েছে। রাখাইন কমিশনের কাছে অং সাং সুচি এ কথা স্বীকার করেছেন। মিয়ানমারের এই বক্তব্য হলো ফেরত আসার সুযোগ না রেখে বিপুল সংখ্যক মানুষকে জোরপূর্বক বহিষ্কারের একটি ঘৃণ্য চক্রান্ত। অপর দিকে, শ্রীলংকাকে বিশ্ব জনিন বিচারব্যবস্থার আওতায় নিয়ে আসতে আবারো দাবি তোলেন জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনার। এর ফলে দেশটির সশস্ত্র বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ বিশ্বের যে কোনো অংশের আদালতে বিচার করা যাবে। রয়টার্স, বিবিসি।

Share Button


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

You cannot copy content of this page

You cannot copy content of this page