ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) এক রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় স্বজনদের হামলার জেরে জরুরি বিভাগের চিকিৎসাসেবা বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ করছেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

ফলে প্রচণ্ড দুর্ভোগের মুখে পড়েছেন রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে চিকিৎসা নিতে আসা শত শত রোগী।

চিকিৎসক ও নার্সদের ওপর রোগীর স্বজনদের হামলার বিচার ও নিরাপত্তা চেয়ে মঙ্গলবার সকালে বহির্বিভাগের সামনে বিক্ষোভ শুরু করেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

ফলে জরুরি বিভাগে চিকিৎসাসেবা বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় সেখানে অনেক রোগীকে অপেক্ষা করতে দেখা যায়।

শনিবার রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত পুরান ঢাকার নওশাদ আহমেদকে হাসপাতাল ভবন-২-এর করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) ভর্তি করা হয়। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিনি মারা যান।

এ নিয়ে রোগীর স্বজন ও চিকিৎসকদের তর্ক হয়। একপর্যায়ে স্বজনরা চিকিৎসকদের ওপর চড়াও হন।

এতে চিকিৎসক ও আনসার সদস্যদের পাল্টা হামলার শিকার হন রোগীর স্বজনরা।

এ ঘটনায় রোগীর দুই স্বজনকে পুলিশের হাতে তুলে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এর পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আরও তিনজনকে আটকের দাবি জানায়।

এদিকে এ ঘটনার পর বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন। এ ছাড়া ঘটনার তদন্তে গঠন করা হয় পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি।

এর পরও মঙ্গলবার চিকিৎসকরা জরুরি সেবা বন্ধ করে বিক্ষোভ করছেন। ফলে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন জরুরি সেবা নিতে আসা শত শত রোগী।

এদিকে ওই হামলার ঘট্নায় রোগীর ৪ স্বজনসহ মোট সাতজনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। এরইমধ্যে রোগীর ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

Share Button