• সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
নিউইয়র্কে সেইভ দ্য পিপল’র উদ্যোগে হালাল খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সেন্ট মার্টিনের নিরাপত্তা নিয়ে স্বার্থান্নেষী মহল গুজব ছড়াছে : আইএসপিআর মুসলিম বিশ্ব নিরানন্দে ঈদ উদযাপন করছে : এরদোয়ান ছেলে জয়ের নামে ছাগল কোরবানি দেবেন অপু, বুবলী দিচ্ছেন গরু ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে যাওয়ার পথে লঞ্চ আটকে দিলেন ম্যাজিষ্ট্রেট সোনাতলা পৌরসভায় ভিজিএফের এর চাল বিতরণ শেষ লগ্নে জমে উঠেছে কলকাতার পশুর হাট, কদর বেড়েছে দুম্বা ও খাসির প্রধানমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় সেনাবাহিনী বিশ্ব-দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে : সেনা প্রধান বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে ১৯ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। সরকার বিদেশের ওপর নির্ভর করে ক্ষমতায় আছে : মির্জা ফখরুল

ভরা মৌসুমেও সবজির দাম চড়া

আপডেটঃ : শনিবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০১৮

শীতের ভরা মৌসুমেও এখন সবজির দাম চড়া। মাঝে কয়েকদিন দাম কিছুটা কমলেও এখন আবার ক্রেতাকে বেশি দামেই কিনতে হচ্ছে সবজি। দু’একটি বাদে ৪০ টাকা কেজির নীচে সবজি নেই বললেই চলে। বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকার পরও কেন সবজির দাম বেশী এর কোন যৌক্তিক ব্যাখ্যা নেই বিক্রেতার কাছে। গত প্রায় এক বছর ধরেই সবজির বাজারের এ অবস্থা। ফলে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে স্বল্প আয়ের মানুষকে। গত ডিসেম্বরে বাজারে শীতকালীন সবজি উঠতে শুরু করলে দাম কিছুটা কমে আসে। কিন্তু গত প্রায় ৮/১০দিন  ধরে সবজির দাম আবার বেড়েছে।
সবজি ব্যবসায়ীরা বলেছেন, গত বছর দেশে বন্যায় সবজি ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এরপ্রভাবে প্রায় বছরজুড়েই সবজির দাম ছিল বেশ চড়া। কিন্তু এখন বাজারে শীতকালীন সবজি উঠলেও দাম সেভাবে কমেনি। তারা বলেন, পাইকারী বাজারে দাম বেশি।
শুক্রবার রাজধানীর কাওরানবাজার ও শান্তিনগরবাজারসহ কয়েকটি বাজারে খোঁজ নিয়ে সবজি বাজারের এ চিত্র পাওয়া যায়। গতকাল বাজারে বেগুন ৫০ থেকে ৬০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, সিম ৫০ টাকা, শশা ৪০ টাকা, টমেটো ৪০ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা, আলু ২৫ টাকা, ঝিঙ্গা ৭০ টাকা, করলা ৬০ থেকে ৭০ টাকা এবং মটরশুটি ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বড় আকারের ফুলকপি ৩৫ থেকে ৪০ টাকা ও বাঁধাকপি ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া প্রতি কেজি কাঁচমরিচ ৬০ থেকে ৭০ টাকা, পেঁয়াজ ৬০ থেকে ৬৫ টাকা, আদা ১০০ থেকে ১৬০ টাকা, রসূন ১১০ থেকে ১২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
শুক্রবার কাওরানবাজারে বাজার করতে আসা চাকরিজীবী আলিমুজ্জামান অনেকটা ক্ষোভের সাথে বলেন, এখন আর সবজি মৌসুম বলে কিছু নেই। সারাবছরই দাম বেশি। তিনি বলেন, সবজি আর মধ্যবিত্তের খাবার নয়। এই বাজারের সবজি বিক্রেতা বেলায়েত হোসেন বলেন, প্রতি বছর শীত মৌসুমে যে পরিমান সবজির সরবরাহ হয়, এবার তুলনামূলক কম। তাই পাইকারী বাজারেও সবজির দাম বেশী। তিনি বলেন, দাম আর বাড়ার সম্ভাবনা নেই। দাম কমবে।
এদিকে মাছ, মাংসের বাজার স্থিতিশীল রয়েছে। বিভিন্ন ধরনের মাছের মধ্যে প্রতি কেজি রুই ২২০ থেকে ৩৫০টাকা, কাতলা ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, সরপুঁটি ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা, তেলাপিয়া ১৪০ থেকে ১৮০, চাষের কৈ ২২০ থেকে ৩৫০, পাঙ্গাস ১৫০ থেকে ২২০, টেংরা ৫০০ থেকে ৬০০, মাগুর ৬০০ থেকে ৭৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর মাংসের মধ্যে ব্রয়লার মুরগি ১৩০ টাকা এবং পাকিস্তানি লাল মুরগি ১৫০ টাকা, গরু ৪৭০ টাকা ও খাসি ৮০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ