• বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৫৯ অপরাহ্ন

প্রেসক্লাব এলাকায় বাড়তি পুলিশ মোতায়েন

নিউজ ডেস্ক
আপডেটঃ : রবিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০২৩

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপির মানববন্ধন কর্মসূচি ঘিরে পুরো এলাকাজুড়ে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া আশপাশের বিভিন্ন মোড়ে চালানো হচ্ছে তল্লাশি।

 

কাউকে সন্দেহজনক মনে হলে থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

জাতীয় নির্বাচনের আগমুহূর্তে এমন রাজনৈতিক কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সতর্ক অবস্থানে থাকার কথা জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

 

 

রোববার (১০ ডিসেম্বর) বেলা ১১টা থেকে মানববন্ধনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনগুলো।

 

এমন কর্মসূচি ঘিরে প্রেসক্লাব, পল্টন, বিজয়নগর, কাকরাইল, মৎস্যভবন, জিপিওসহ আশপাশের এলাকায় পুলিশ সদস্যদের বাড়তি তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে।

 

 

প্রস্তুত রাখা হয়েছে প্রিজনভ্যান, এপিসি, জলকামান। এ ছাড়া গোয়েন্দা নজরদারির জন্য নিয়োজিত রয়েছেন সাদা পোশাকে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য।

 

 

এসব এলাকার বিভিন্ন সড়কের মোড়ে মোড়ে পুলিশ সদস্যরা দায়িত্বপালন করছেন। কাউকে সন্দেহজনক মনে হলে জিজ্ঞাসাবাদ ও তল্লাশি করছেন তারা।

 

এদিকে রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সরেজমিনে দেখা যায়, প্রেসক্লাবের সামনে এখনও বিএনপি-নেতাকর্মীদের উপস্থিতি দেখা যায়নি। কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠন মানববন্ধন করছে।

 

ডিএমপি জানায়, বিএনপির মানববন্ধন কর্মসূচি থাকলেও নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে এমন কোনো গোয়েন্দা তথ্য নেই। তবে যেহেতু সামনেই জাতীয় নির্বাচন এবং অতীতের বিএনপির সমাবেশ ঘিরে সহিংসতার অভিজ্ঞতার কারণে বাড়তি প্রস্তুতি রয়েছে পুলিশের। যেন কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে লক্ষ্যে বাড়তি পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

 

পল্টন মোড়ে দায়িত্বরত ডিএমপির এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপির রাজনৈতিক কর্মসূচি ঘিরে সকাল থেকেই পুলিশের বাড়তি সদস্য আশপাশের এলাকায় মোতায়েন রয়েছে। যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সতর্ক রয়েছে।

 

রোববার ঢাকাসহ সারা দেশের জেলা সদরে গুম-খুনের শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মানববন্ধন করবে বিএনপি। ঢাকায় মানববন্ধন হবে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বেলা ১১টায়।

 

বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়, এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর বিএনপি সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে এবং ঢাকার বাইরে অন্যান্য জেলাসমূহে মানববন্ধনে সাফল্যমণ্ডিত করার জন্য তারা প্রস্তুতি নিয়েছে।

 

গত ২৮ অক্টোবর ঢাকায় বিএনপির মহাসমাবেশ ঘিরে সহিংসতার পর থেকে বিএনপি হরতাল-অবরোধের মতো কর্মসূচি দিয়ে যাচ্ছে। সরকারের পদত্যাগ, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন এবং তফসিল বাতিলের দাবিতে দশম দফায় ২০ দিন অবরোধ ও তিন দফায় চারদিন হরতাল কর্মসূচি করেছে দলটি।

Share Button


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

You cannot copy content of this page

You cannot copy content of this page