• সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৬:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
নিউইয়র্কে সেইভ দ্য পিপল’র উদ্যোগে হালাল খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সেন্ট মার্টিনের নিরাপত্তা নিয়ে স্বার্থান্নেষী মহল গুজব ছড়াছে : আইএসপিআর মুসলিম বিশ্ব নিরানন্দে ঈদ উদযাপন করছে : এরদোয়ান ছেলে জয়ের নামে ছাগল কোরবানি দেবেন অপু, বুবলী দিচ্ছেন গরু ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে যাওয়ার পথে লঞ্চ আটকে দিলেন ম্যাজিষ্ট্রেট সোনাতলা পৌরসভায় ভিজিএফের এর চাল বিতরণ শেষ লগ্নে জমে উঠেছে কলকাতার পশুর হাট, কদর বেড়েছে দুম্বা ও খাসির প্রধানমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় সেনাবাহিনী বিশ্ব-দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে : সেনা প্রধান বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে ১৯ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। সরকার বিদেশের ওপর নির্ভর করে ক্ষমতায় আছে : মির্জা ফখরুল

প্রকৃত ঘটনা আড়াল করতে জালসনদে চাকুরী নেওয়া ১৩ শিক্ষক মরিয়া

আপডেটঃ : বৃহস্পতিবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮

আব্দুর রহমান রাসেল(রংপুর) প্রতিনিধি॥
রংপুরের পীরগাছায় জাল সনদে ১৩ জন শিক্ষকের চাকুরী করণের সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসেছে অভিযুক্ত শিক্ষকরা। সেই সাথে ঘটনাটিকে ভিন্নখাতে নিতে সংবাদ কর্মীদের দেখিয়ে নেওয়ার হুমকি সহ বিভিন্ন অপচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে অভিযুক্তরা। এদিকে, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহওনর জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় সচেতন মহল। অপরদিকে,  সভ্যতার সমাজে অসভ্যতা করায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যাবস্থা গ্রহনেরও দাবী এখন সময়ের বলে মন্তব্য করেছেন কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।
জানা যায়, উপজেলার ৯ ইউনিয়নের নতুন জাতীয়করণকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৩ জন শিক্ষক জাল সনদসহ বিভিন্ন অনিয়মের মাধ্যমে জাতীয়করণ ও পদোন্নতির মাধ্যমে সরকারি অর্থ আত্মসাৎ করেছে । এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব পুলক রঞ্জন সাহা তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ইতোমধ্যে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে নির্দেশ দিয়েছেন। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে তদন্তের কাজ এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন।
উল্লেখ্য, উপজেলার দাদন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে জাল সনদে চাকরির অভিযোগ রয়েছে। তার জাল সনদের বিষয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জেসমিন আক্তার তদন্ত করেন। তদন্তে ভুয়া সনদ প্রমাণিত হওয়ার পরেও তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। তাজতালুক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম দাখিল পাসের ভুয়া সনদে চাকরি করছেন। পশ্চিম কাশিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম ১৯৯৪ সালে এইচ, এস, সি, পাসের ভুয়া সনদে চাকরি করছেন। কিন্তু তিনি ২০০৮ সালে  এইচ, এস, সি পাস করেন। এমপিওভুক্ত হয়েছেন ২০০০ সালে। এবং ভুয়া সনদে চাকরি করা অবস্থায় পদোন্নতির মাধ্যমে তিনি পশ্চিম কাশিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে কাশিয়াবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। রংদার পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাদশা আলম স্নাতক পাস করেন ২০১০ সালে। কিন্তু তিনি এমপিওভুক্ত হয়েছেন ১৯৯৯ সালের ১ জুলাই। এ ছাড়া অনন্তরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজাদুল হক, ছোট হায়াত খাঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বুলু মিয়া, দোলা পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহিদ সরোয়ার চৌধুরী, কিসামত ঝিনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহিনুর রহমান, পশ্চিম দেবু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শরীফা খাতুন, উত্তর তালুক কান্দি সরকারি পপ্রথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হোসনে আরা বেগম ও পূর্ব শিবদেব চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে জাল সনদসহ অনিয়মের মাধ্যমে এমপিওভুক্ত, পদোন্নতি ও সরকারি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে তদন্ত চলছে। তদন্ত কমিটির প্রধান ও জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তাজুল ইসলাম জানান, অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত ১৩ জন প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে করা অভিযোগের তদন্ত চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ