ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি॥
ময়মনসিংহের ভালুকায় স্বেচ্ছাসেবী কর্মীর বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে ভালুকা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ওই সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তৃতায় সমাজ সেবায় উৎসাহমূলক স্বেচ্ছাসেবী  সংগঠন ‘‘অভ্যুদয়’’ এর সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমন বলেন- অরাজনৈতিক এ সংগঠনটির মাধ্যমে ইতিমধ্যে সাড়া দেশের বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ২৫শত ব্যাগ রক্ত দান কারা হয়েছে। সংগঠনটি প্রায় ২০ জন থ্যালাসেমিয়া রোগীর নিয়মিত রক্তদানের দায়িত্ব সহ ৫ জন অসহায় রোগীর চিকিৎসা ব্যয় বহনের দায়িত্ব নেওয়ার কথা জানান।
তিনি বলেন, গত ২৩ অক্টোবর ভালুকা ডট কম নামে একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল সহ কয়েকটি পত্রিকায় আমার ও সংগঠনের সুনাম ক্ষুন্ন করার উদ্দেশ্যে আমার নামে মিথ্যা, ভিত্তিহীন একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। একটি অসাধু মহল নিজের হীন স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য আমার বিরুদ্ধে ভালুকা মডেল থানায় হাসপাতাল ভাঙ্গচুর ও চাঁদাবাজির মিথ্যা একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। যা শুধু মাত্র ওই কাগজের ছবির উপর ভিত্তি করে কোন প্রকার আইনি তদন্ত ব্যতিরেকে এবং আমার সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ না করে আমার বক্তব্য ছাড়া একটি একপেশে সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদটি প্রকাশের পর থেকেই ভালুকার সাধারণ মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেগুলোতে নিন্দা ও ধিক্কার জানাতে থাকলেও পরের দিন ২৫-১০-২০১৭ ইং তারিখে  “ভালুকার  আজকের টপ অফদা টাউন সন্ত্রাসী সুমন” শিরোনামে ভালুকা ডট কমে একটি ভিত্তিহীন, মিথ্যা, বানোয়াট সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদে মিথ্যাচার করার বিষয়ে ৯৯% লোক সামাজিক যোগাযোগের কমেন্টস্ বক্সে তাদের নেতিবাচক মন্তব্যে পত্রিকাটির প্রতি ঘৃণা প্রকাশ করেছেন। মূলতঃ আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করতে ও ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থ করা উদ্দেশ্যে এবং সংগঠনের সম্মান নষ্ট করতে এমন ষড়ষন্ত্র মূলক মিথ্যা সংবাদটি প্রচার করা হয়েছে তা গনমানুষের প্রতিক্রিয়া থেকেই প্রমাণিত। আমি উক্ত সংবাদগুলোর তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি সেই সাথে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করা থেকে বিরত থাকার জন্য এবং প্রকৃত ঘটনা উৎঘাটন পূর্বক তা গণমাধ্যমগুলোতে প্রচারের জন্য সাংবাদিক ভাইদের প্রতি অনুরোধ করছি।
তিনি বলেন আমার বিরুদ্ধে যে মিথ্যাচার করা হয়েছে তার প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে, গত ২২-১০-২০১৭ ইং তারিখে সকাল আনুমানিক ১১ টার দিকে আমার  সংগঠনের কার্যকরী পরিষদ সদস্য রফিকুল ইসলাম রফিক কে নিয়ে পৌর সভার ৭নং ওয়ার্ডের ফাহিম জেনারেল হাসপাতালে রক্ত দিতে যাই। ইতিপূর্বেও বেশ কয়েক বার আমার সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবীরা উক্ত হাসপাতালে স্বেচ্ছায় রক্ত দান করেছেন। ঘটনার দিন রক্ত দানের সময় রোগীর এক আতœীয়ের কথাবার্তায় আমাদের মনে স্বেচ্ছায় দান করা রক্ত বিক্রির সন্দেহের উদ্রেগ হয়। পরে আমরা রক্ত দিতে অপারগতা প্রকাশ করি। তারপরই ওই হাসপাতালে দায়িত্বে থাকা মাহবুবা আক্তার বর্না নামের একটি মেয়ে আমাদের সাথে খারাপ আচরন শুরু করে হাসপাতাল থেকে বের হয়ে যেতে বলে। আমাদের উপর উত্তেজিত হয়ে ল্যাবে থাকা হেক্সিসলের বোতল আমার ও রক্ত দান করতে যাওয়া স্বেচ্ছাসেবীর গায়ে ছোরে মারে। পরে হাসপাতাল থেকে চলে আসার পর হাসপাতালের মালিক শাহ্ মোঃ আলী আজগর তার ব্যক্তিগত মোবাইল থেকে ফোন করে বিভিন্ন হুমকী প্রদান করে।  হাসপাতাল মালিকের অশালীন আচরণের অডিও রেকর্ড তার কাছে সংরক্ষিত রয়েছে। সংগঠনের পক্ষ থেকে তাৎক্ষনিক জরুরী সভা ডেকে হাসপাতালটির প্রতি “নিন্দা জ্ঞাপন” করা হলে নিন্দার কপিটি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে লাইক ও কমেন্টে ভাইরালে রূপ নেয়।
আসাদুজ্জামান সুমন আরও জানান, উক্ত হাসপাতালটির বিরুদ্ধে ইতিপূর্বেও স্বেচ্ছাসেবীদের দান করা রক্ত বিক্রয়ের অভিযোগ রয়েছে যার বাস্তব প্রমাণ সে নিজে ও তার সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান বদরুল টিপু সহ আরও কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবী। যে কারণে আমার সংগঠনটি বেশ কিছুদিন ওই হাসপাতালে রক্ত দান করা থেকে বিরত ছিল।
আসাদুজ্জামান সুমন বলেন, আমার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসীর যে অভিযোগ তোলা হয়েছে তার সত্যতা প্রমাণ করতে পারলে আমি যে কোন শাস্তি মাথা পেতে নিবো। আমার সংগঠন সামাজিক ও জাতীয় বিভিন্ন প্রোগ্রামে স্বতঃস্পূর্ত অংশ গ্রহনের মাধ্যমে দেশ ব্যাপী যে ভাবে সমাদৃত হচ্ছে  এতে সমাজের অনেক হীন নিচু মানষিক ব্যক্তি ইর্ষান্বিত। ভাল কাজ করতে হলে অনেক বাধা বিপত্তি আসবে তাতে কিছুতেই পিছপা  হবো না। সেই সাথে সকল ষড়যন্ত্র বাধা উপক্ষো করে সমাজ ও মানুষের কল্যানে কাজ করতে “অভ্যুদয়” সব সময়ই অঙ্গীকারবদ্ধ। উক্ত অঙ্গীকার বাস্তবায়নে অতীতের ন্যায় সকলের আন্তরিক সহযোগীতা, ভালবাসা, দোয়া ও  মহান আল্লাহ্ তা’য়ালার নিকট সকলের সুস্থতা, মঙ্গল ও দীর্ঘায়ু কামনা করেন।
সংবাদ সম্মেলনের অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন অভ্যুদয়ের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান বদরুল টিপু, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ মোঃ রেজাউল করিম অপু, সুরুভী সাংস্কৃতিক সংস্থার সভাপতি এস.এম শাহজাহান সেলিম, বয়েজ ক্লাবের সভাপতি এস.এম গোলাম, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুল্যাহ্ সবুজ, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ভালুকা ক্লাবের সভাপতি সুমন খান, সঞ্জীবন ভালুকা শাখার সভাপতি হাবিবুর রহমান শান্ত, ভালুকা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক জাহিদুল ইসলাম সুবিন, মোঃ রেজাউল করিম, সাইদুর রহমান সাইদ, ইফতেখার আহমেদ সুজন, আবুল বাসার সজল, মোহাম্মদ আলম মিয়া, রফিকুল ইসলাম রফিক, এস.এম. মাসুদ রানা বুলবুল প্রমুখ।

Share Button